রাশিয়াই মেসির শেষ বিশ্বকাপ

কোপা আমেরিকার গত আসরের ফাইনালে চিলির কাছে হেরে হুট করেই আন্তর্জাতিক ফুটবলকে বিদায় বলে দেন লিওনেল মেসি। অনেক বোঝানোর পর শেষমেশ আবারও ফিরে আসেন ফুটবলে। অবসর ভেঙে জাতীয় দলের জার্সি গায়ে শুরুটা খুব বেশি রাঙাতে পারেননি লিও। কিন্তু দিন শেষে ঠিকই প্রিয় দেশকে উপহার দেন বিশ্বকাপের টিকিট।

ইকুয়েডরের বিপক্ষে দুর্দান্ত হ্যাটট্রিক করে খাদের কিনারা থেকে আর্জেন্টিনাকে নিয়ে যান রাশিয়া বিশ্বকাপে। এমন ভালোলাগার দিনে আবারও মেসির সামনে হাজির অবসরের প্রশ্ন। ফুটবলের জনপ্রিয় ওয়েবসাইট ‘ইএসপিএন এফসি’কে দেয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে সে প্রশ্নের উত্তর দিলেন কিং লিও।

এটা কী আপনার শেষ বিশ্বকাপ? উত্তরে নাম্বার টেন বলেন, ‘আমি জানি না। বিশ্বকাপের পর কী হবে সেটাও বলতে পারছি না। রাশিয়া বিশ্বকাপের আগে এসব নিয়ে কোনো চিন্তা করতে চাই না। বিশ্বকাপ শেষ হোক, তারপর না-হয় দেখা যাবে।’

এদিকে যারা মেসি মেসি বলে চিৎকার করে গলা ফাটান, যারা মেসির জন্য নাওয়া-খাওয়া বাদ দিয়ে বসে যান টিভি সেটের সামনে, যারা মেসির খেলা দেখার জন্য রাতের ঘুমকে হারাম করে দেন, তাদের দিকেই এবার আঙ্গুল তুললেন বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন সুপারস্টার লিওনেল মেসি।

আর্জেন্টিনা দলে আমার কথায় নাকি সব হয়? মেসি, ‘এমনটা ডাহা মিথ্যা। জাতীয় দল আমি চালাই না।’লোকের উপহাস শুনে রাগ হয় মেসির। ‘আসলে অনেকে না জেনেও কথা বলে। এটা আমাকে অনেক রাগান্বিত করে। যদিও সব হাস্য-রস্যের গল্প হজম করার সামর্থ্য আমার আছে।

নিন্দুকের সমালোচনা শুনে আমি অভ্যস্ত। দেখুন গত কয়েক বছর ধরে কেবল আমি নয়, আমার সতীর্থদের নিয়েও নানা কটুকথা শুনছি। দিনের পর দিন সমালোচনা শুনে মনে হচ্ছে, পথ চলতে হলে এটাকে নিয়েই চলতে হবে।’

মানুষ বিন্দুমাত্র সন্মান রেখে কথা বলেন না উল্লেখ করে পাঁচবারের বর্ষসেরা ফুটবলার বলেন, ‘প্রায় একটা কথা কানে আসে যে, আমি আর্জেন্টিনা দলে খেলোয়াড় বাছাই এবং কোচ কাটছাঁটে প্রভাবিত করি। আমি বললো এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা। দল নির্বাচন কিংবা কোচ ঠিকঠাক করা সামগ্রিক কাজ, আমার একার নয়।

দেখুন আমার কথা বাদই দিলাম, ডি মারিয়া, সার্জিও আগুয়েরো, হিগুয়েন, মাচেরানো-যারা বিশ্বখ্যাত ফুটবলার। এদের নিয়েও যাচ্ছেতাই মন্তব্য করা হচ্ছে।’কয়েক দিন আগে ডি মারিয়া বলেছিলেন রাশিয়া বিশ্বকাপের টিকিট হাতে না পেলে আর্জেন্টিনা দল থেকে অনেকেই বিদায় বলে দিতেন।

এমন প্রশ্নের জবাবে মেসি বলেন, ‘এটা অনুমান করা অসম্ভব। আমি অন্যদের কথা বলতে পারি না। বিশ্বকাপে খেলাটা আমাদের দরকার ছিল, আমরা এই অনুভূতি থেকে খেলেছি। বিশ্বকাপে যাওয়ার জন্য সর্বাত্মক চেষ্টা করেছি।’

প্রসঙ্গত, ১৪ জুন থেকে ১৫ জুলাই রাশিয়ায় বসছে ফিফা বিশ্বকাপের ২১তম আসর হবে। ২০০৬ ফিফা বিশ্বকাপের পর প্রথমবারের মতো ইউরোপে অনুষ্ঠিত হবে ফুটবল বিশ্বকাপ। প্রতিযোগিতার চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেবে ৩২টি দল। ইতোমধ্যে ২৩টি দল নিশ্চিত করেছে বিশ্বকাপ যাত্রা।

বাকি কোন ৯টি দল রাশিয়ার টিকিট পাবে, সেটাও নির্ধারিত হয়ে যাবে আগামী ১৪ নভেম্বরের মধ্যে। এরপর ১ ডিসেম্বর হবে বিশ্বকাপের ড্র। রাশিয়ার ১১টি শহরের ১২টি স্টেডিয়ামে মোট ৬৪টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। ১৫ জুলাই মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে শিরোপা ফয়সালার মধ্য দিয়ে শেষ হবে বিশ্বকাপের টান টান উত্তেজনা।

বিশ্বকাপ জিতলে ৬৫ কিলোমিটার হাঁটবেন মেসি

স্পোর্টস ডেস্ক: বিশ্বকাপ জিতলে কি করবেন? এমন প্রশ্নে ফুটবল তারকাদের একেকজনের উত্তর একেক রকম। ডিয়েগো ম্যারাডোনার মত চ্যালেঞ্জপ্রেমী ফুটবলার তো কাপড় ছাড়া রাস্তায় হাঁটার চ্যালেঞ্জও নিয়েছিলেন।

তবে মেসি ওতটা পাগলাটে নন। নরম স্বভাবের আর্জেন্টাইন অধিনায়ক তবু বড়সড় একটা চ্যালেঞ্জ নিয়েই রেখেছেন মনের মধ্যে। কি সেই চ্যালেঞ্জ? রাশিয়ায় বিশ্বকাপ জিতলে ৬৫ কিলোমিটার রাস্তা পায়ে হেঁটে যাবেন তিনি।

বিশ্বকাপে খেলা নিশ্চিত হয়ে গেছে। এখন শুধু ভাবনা শিরোপা নিয়ে। বারবার যেটা হাতে ধরা দেই দেই করেও দিচ্ছে না আর্জেন্টিনার। মেসিকে এজন্য কম কথা শুনতে হয়নি। বিশ্বকাপ না জিততে পারলে হয়তো আরও শুনতে হবে। আর্জেন্টাইন অধিনায়ক তাই লক্ষ্য ঠিক করে ফেলেছেন এবার। বলেছেন, ‘আমাদের সবার একটাই চাওয়া-বিশ্বকাপ জয়।’

পরের প্রসঙ্গটা খুব মজার। শেষপর্যন্ত যদি মেসির অধীনে আর্জেন্টিনা বিশ্বকাপ জিতেই যায়, তবে বার্সেলোনা তারকা কি করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে ৩০ বছর বয়সী মেসির চটজলদি উত্তর, ‘আমরা যদি বিশ্বকাপ জিততে পারি, আমি সান নিকোলাস পর্যন্ত হাঁটব (বুয়েনস আয়ার্স থেকে ৬৫ কিলোমিটার দূরের একটি শহর)।’

জাপান উড়িয়ে দিলো নেইমারের ব্রাজিল, দেখে নিন চূড়ান্ত স্কোর লাইন

শুক্রবার (১০ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায় ফ্রান্সের পিয়ের মারওয় স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় দুই দল। বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্যই মূলত দুই দলের মধ্যে এ আন্তর্জাতিক প্রতি ম্যাচের আয়োজন করা হয়।

নেইমার ইনজুরিতে থাকলেও শেষ পর্যন্ত শুরু থেকেই মাঠে নেমেছেন। খেলার ১০ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল করে ১-০ লিড এনে দেন নেইমার। তার ঠিক ৭ মিনিট পর অর্থাৎ ১৭ মিনিটে ব্রাজিলের পক্ষে ২য় গোল করেন মারসেলো।

খেলার ৩৬ মিনিটে জেসুস ব্রাজিলের হয়ে ৩য় গোল করেন । তবে জাপান ২৯ মিনিটে দারুণ এক গোলের সুযোগ নষ্ট হয়ে যায় বল গোলপোস্টে লাগলে।

পুরো খেলায় এখন পর্যন্ত ৭০ % বল পজিশন নিয়ে দাপট দেখিয়েছে নেইমাররা। এখন দেখার বিষয় বাকী ৪৫ মিনিটে কি করে ব্রাজিল।

বিরতির পর জাপানের মাকিনো ৬৩ মিনিটে একটি গোল পরিশোধ করেন। ৭০ মিনিটের সময় নেইমারকে উঠিয়ে দেন কোচ তিতে। এরপরও একের পর এক আক্রমণ করতে থাকে ব্রাজিল। তবে জাপানের প্রতিরোধ ছিল দেখার মত। বাকী সময়ে আর গোল না করতে পারলে ৩-১ এ খেলার সমাপ্তি হয়।

ব্রাজিল স্কোয়াড:
গোলরক্ষক: এ্যালিসন, কাসিও, এডারসন।
ডিফেন্ডার: এলেক্স সানড্রো, মার্সেলো, ডানি আলভেস, ডানিলো, জেমারসন, মারকুইনহোস, মিরান্ডা, থিয়াগো সিলভা।
মিডফিল্ডার: কাসেমিরো, দিয়েগো, ফার্নানদিনহো, গুলিআনো, পলিনহো, কুতিনহো, রেনাটো অগাস্টো ও উইলিয়ান।
ফরোয়ার্ড: দিয়েগো সুজা, দুঙ্গাস কোস্টা, রবার্তো ফারমিনহো, গ্যাব্রিয়েল জেসাস, নেইমার ও তাসিনো।

শক্তিশালী প্রতিপক্ষের বিপক্ষে আগামীকাল মাঠে নামবে মেসির আর্জেন্টিনা। জেনেনিন কখন, কোথায়

আর মাত্র ২১২ দিন। তারপরই পর্দা উঠবে ফুটবলের সবথেকে বড় আসর ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ। আগামী জুনে রাশিয়াতে বসতে যাচ্ছে ফিফা বিশ্বকাপের ২১ তম এ আসর। প্রতিবারের মতো এবারের আসরেও অংশ নিবে ৩২টি দল। যদিও এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হয়েছে ২৩ দলের বিশ্বকাপ অংশগ্রহন।

আর্জেন্টিনার পরবর্তী মিশন ২০১৮ বিশ্বকাপের স্বাগতিক দেশ রাশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ। যেখানে নাইজেরিয়ার বিপক্ষেও প্রীতি ম্যাচে লড়বে আলবেসেলিস্তারা।

তবে চোট পাওয়ায় ইকার্দিকে বাদ দেওয়া হয়েছে। ইতালিয়ান সিরিআ লিগে তুরিনের বিপক্ষে ম্যাচে চোট পান তিনি।

এর আগে, লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে তুরিনের বিপক্ষে ১-১ গোলের ড্র করে ইন্টার। সে ম্যাচে হাঁটুতে চোট পান দলটির অধিনায়ক ইকার্দি। তবে ম্যাচের ৯০ মিনিটই খেলতে দেখা যায় এ তারকাকে।

আগামীকাল ১১ নভেম্বর মস্কোতে রাশিয়ার বিপক্ষে খেলবে কোচ জর্জ সাম্পাওলির অধীনে আর্জেন্টিনা। ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৭টায়। এর তিন দিন পর ক্রাসেনোদারে নাইজেরিয়ার মুখোমুখি হবে টিম আর্জেন্টিনা।

১৭ মিনিটে ২ গোল করে এগিয়ে গেল ব্রাজিল

আজ শুক্রবার (১০ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায় ফ্রান্সের পিয়ের মারওয় স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হয় দুই দল। বিশ্বকাপের প্রস্তুতির জন্যই মূলত দুই দলের মধ্যে এ আন্তর্জাতিক প্রতি ম্যাচের আয়োজন করা হয়েছে।

নেইমার ইনজুরিতে থাকলেও শেষ পর্যন্ত শুরু থেকেই মাঠে নেমেছেন। খেলার ১০ মিনিটের মাথায় পেনাল্টি থেকে গোল করে ১-০ লিড এনে দেন নেইমার। তার ঠিক ৭ মিনিট পর অর্থাৎ ১৭ মিনিটে ব্রাজিলের পক্ষে ২য় গোল করেন মারসেলো।

খেলার ৩৭ মিনিটে জেসুস ব্রাজিলের হয়ে ৩য় গোল করেন । তবে জাপান ২৯ মিনিটে দারুণ এক গোলের সুযোগ নষ্ট হয়ে যায় বল গোলপোস্টে লাগলে।

পুরো খেলায় এখন পর্যন্ত ৭০ % বল পজিশন নিয়ে দাপত দেখিয়েছে নেইমাররা। এখন দেখার বিষয় বাকী ৪৫ মিনিটে কি করে ব্রাজিল

ফ্রান্সে অনুষ্ঠিত ম্যাচটি ওই দেশের স্থানীয় একটি টিভি চ্যানেল ছাড়া আর কোথাও দেখাবে না। তবে লাইভ দেখা যাবে ইউটিউব লাইভে। ইউটিউভের লাইভ অপশানে গেলেই ম্যাচটি সরাসরি দেখতে পারবেন। লাইভ দেখার লিংক বিরতির পর আবার দেখতে পারবেন।

ব্রাজিল স্কোয়াড:
গোলরক্ষক: এ্যালিসন, কাসিও, এডারসন।
ডিফেন্ডার: এলেক্স সানড্রো, মার্সেলো, ডানি আলভেস, ডানিলো, জেমারসন, মারকুইনহোস, মিরান্ডা, থিয়াগো সিলভা।
মিডফিল্ডার: কাসেমিরো, দিয়েগো, ফার্নানদিনহো, গুলিআনো, পলিনহো, কুতিনহো, রেনাটো অগাস্টো ও উইলিয়ান।
ফরোয়ার্ড: দিয়েগো সুজা, দুঙ্গাস কোস্টা, রবার্তো ফারমিনহো, গ্যাব্রিয়েল জেসাস, নেইমার ও তাসিনো।

যে চ্যানেলে দেখাবে ব্রাজিল-জাপানের ম্যাচটি

রাশিয়া বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে মাঠে নামার আগে প্রস্তুতিতে কোনো রকম ঘাটতি রাখতে চাইছে না ব্রাজিল। এরই অংশ হিসেবে আজ (শুক্রবার) জাপানের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলবে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ফ্রান্সের পিয়েরে মৌরেতে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায়।

ম্যাচটি বাংলাদেশি কোন চ্যানেলে দিবেনা। ম্যাচটি দেখাবে – সুপার স্পোর্টস ২, বেন স্পোর্টস, স্পোর্টস ম্যাক্স, স্পোর্টস ম্যাক্স ২, গ্লোবো চ্যানেল।

একটু পরই মাঠে নামবে ব্রাজিল, দেখুন একাদশ

রাশিয়া বিশ্বকাপের চূড়ান্ত পর্বে মাঠে নামার আগে প্রস্তুতিতে কোনো রকম ঘাটতি রাখতে চাইছে না ব্রাজিল। এরই অংশ হিসেবে আজ (শুক্রবার) জাপানের বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচ খেলবে পাঁচবারের বিশ্বচ্যাম্পিয়নরা। ফ্রান্সের পিয়েরে মৌরেতে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬টায়।

এই ম্যাচের জন্য ঘোষিত ব্রাজিলের একাদশ:

অ্যালিশন, দানিলো, থিয়াগো সিলভা, জেমারশন, মার্সেলো, কাসমিরো, ফার্নান্দিনহো, গুইলিয়ানো, উইলিয়ান, গ্যাব্রিয়েল জেসুস, নেইমার।

বার্সা ছেড়ে কোন ক্লাবে যেতে চান? আবেগপ্রবণ হয়ে জানালেন মেসি নিজেই

স্পোর্টস ডেস্ক : বার্সেলোনা ছেড়ে যাচ্ছেন লিওনেল মেসি! খবরের এই শিরোনাম দেখে হুমড়ি খেয়ে পড়েন ভক্ত-সমর্থকরা। জানতে চান বার্সা ছেড়ে প্রিয় খেলোয়াড় কোন দলে যাচ্ছেন? মিডিয়ায় একেক সময় আসে একেক ক্লাবের নাম আসে। এই তো কিছুদিন আগে শোনা গিয়েছিল ম্যানচেস্টার সিটির কথা। তবে এবার মেসি নিজেই মুখ খুললেন। জানালেন তার স্বপ্নের দলের কথা।

মাত্র ছয় বছর বয়সে ফুটবল ক্যারিয়ারের শুরু করেছিলেন মেসি। সেটি ১৯৯৪ সালের কথা। আর্জেন্টিনার সান্টা ফি প্রদেশের সর্ববৃহৎ শহর রোজারিওর নিউওয়েল’স ওল্ড বয়েজ ক্লাবের হয়ে ক্যারিয়ার শুরু করেন এই ফুটবল রাজপুত্র।

ফেলে আসা সে দিনগুলো এখনো টানে ৩০ বছর বয়সী এই ফুটবল জাদুকরকে। রূপকথার সেই জগতে আবারো ফিরে যেতে চান মেসি। অপূর্ণ মুহূর্তগুলো পূর্ণ করতে চান।

কারণ এখান থেকেই বার্সেলোনার স্কাউটে যোগ দেন মেসি। তার আগে অবশ্য বার্সেলোনার যুব অ্যাকাডেমি লা মাসিয়ায় পথচলা শুরু হয়। তাই হয়ত ক্যারিয়ারের শেষ সময়টা সেই পুরনো ক্লাবটিতে কাটাতে চান মেসি।

ছোটবেলার সেই দল নিয়ে মেসি জানান, ‘আমি এখনো নিউওয়েল’স ওল্ড বয়েজ ক্লাবের হয়ে খেলতে চাই। এটি আমার স্বপ্নের দল। তবে সম্প্রতিই আমি বলেছি, এখন থেকে আরো কয়েক বছর পর কী হবে আমি জানি না, জানি না কিভাবে সেখানে ফিরে যাবো।’

তিনি আবেগপ্রবণ হয়ে বলেন, ‘সেখানে খেলতে পারলে আমি আসলেই খুব খুশি হবো। আমি সব সময় সেখানে খেলতে চেয়েছি। ছোটবেলা থেকেই আমার স্বপ্ন ছিল নিউওয়েল’স ওল্ড বয়েজে খেলার। আর আজ ক্যারিয়ারের এই সময়ে এসেও আমি এই ক্লাবের হয়ে খেলতে চাই।’

পেলের পর মেসি পেলেন টেলস্টার

স্পোর্টস ডেস্ক: ২০১৮ রাশিয়া বিশ্বকাপে ফিরছে পাঁচ দশকের পুরনো ইতিহাস। এককথায় ‘ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি’। ১৯৭০ সালের মেক্সিকো বিশ্বকাপের আইকনিক টেলস্টার ফুটবল ফিরছে মস্কোতে। ৩২ প্যানেল বিশিষ্ট ফুটবলকে নতুন আঙ্গিকে নিয়ে আসল ক্রীড়া সামগ্রী প্রস্ততকারক জার্মান সংস্থা অ্যাডিডাস। বৃহস্পতিবার আন্তর্জাতিক ফুটবল ফেডারেশন ফিফা’র মঞ্চে নব রূপ উন্মোচিত টেলস্টার-এর। রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে টেলস্টার ১৮-এ, আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করেছে ফিফা।

কেন ফিরিয়ে নিয়ে আনা হল টেলস্টার কে? বিশ্বকাপের ফুটবল তৈরির দায়িত্বে থাকা অ্যাডিডাস জানিয়েছে, ফুটবলপ্রেমীদের কাছে আইকনিক টেলস্টার নিয়ে একটা ভিন্ন উন্মাদনা রয়েছে, মানুষ এর ইতিহাস জানে। সেই ঐতিহ্যের পুনরুদ্ধারের জন্যই টেলস্টার-র ‘রিমেক’ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে অ্যাডিডাস। ১৯৭০ এবং ১৯৭৪, পরপর দু’বার বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিল এই টেলস্টার ফুটবলেই।

বিশ শতকের শুরুতে দুনিয়া দেখেছিল ব্রাজুকা আর জাবুলানির দাদাগিরি। ২০১০-এ দক্ষিণ আফ্রিকা বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে জাবুলানি-তে।
২০১৪ ব্রাজিল বিশ্বকাপের অফিসিয়াল ফুটবল ছিল ব্রাজুকা। এবার ২০১৮ ফুটবল বিশ্বকাপ খেলা হবে ৪৮ বছরের পুরনো আইকনিক টেলস্টার-এ। বয়সে পুরনো হলেও আধুনিকতার ছোঁয়ায় বাকিদের টেক্কা দেবে টেলস্টার, আশাবাদী অ্যাডিডাস।

মেক্সিকো বিশ্বকাপে টেলস্টার ফুটবলেই বিশ্বজয় করেছিলেন ফুটবল সম্রাট পেলে। ইতালিকে ১-৪ গোলে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল পেলের ব্রাজিল। সেই ঐতিহ্যের টেলস্টার-কে পেয়ে উচ্ছ্বসিত আর্জেন্টাইন তারকা লিওনেল মেসি। ফুটবল যুবরাজ বলছেন, বিশ্বকাপের আগেই টেলস্টার-কে পাওয়া আমার কাছে সৌভাগ্যের। নকশা, রং-সব দিক থেকেই এই ফুটবল আমার ভীষণ পছন্দের।