কোন জিনিসের গন্ধ শোঁকা মাত্রই নারীদের কাম উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ বেড়ে যায়!

আজকের কথা নয়। সেই আদিম যুগ থেকেই ভেষজ উদ্ভিদ মানুষের যৌন উত্তেজনায় একটি বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করেছে। প্রাচীন মানুষরা বিভিন্ন ভেষজ পদার্থের মাধ্যমেই নারীদের যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি করতেন।

জল হ্যালিডে এবং নোয়া সোল নামে দুই বিজ্ঞানী এই বিশেষ ছত্রাকটি আবিষ্কার করেন।তাঁরা জানিয়েছেন, এই বিশেষ ছত্রাকের গন্ধ কোনও মহিলার নাকে যাওয়া মাত্রই তিনি প্রচণ্ডভাবে উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এই মর্মে তারা একটি পরীক্ষাও চালিয়েছিলেন।

সেখানেই দেখা গেছে, ১৬ জনের মধ্যে ছ’জন মহিলাই এই চটদলদি যৌন উত্তেজনার শিকার হয়েছেন। বাকি ১০ জনের উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ না বাড়লেও হৃদস্পন্দন অনেকটাই বেড়ে গেছিল। তবে এই একই পরীক্ষা পুরুষদের উপর চালানো হলেও, কোনও প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি তাই বাস্তবতার প্রেক্ষিতে শেখার প্রয়োজন রয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মেডিসিনাল মাশরুম পত্রিকাতেও একথা দাবি করা হয়েছে যে এই বিশেষ ছত্রাকে একধরনের গন্ধ থাকে যা থেকেই মহিলাদের চটদলদি যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়।

হ্যালিডে জানিয়েছেন, এই ছত্রাকে একটি বিশেষ হরমোনের যৌগ রয়েছে যা সরাসরি মহিলাদের স্নায়ুতে গিয়ে আঘাত করে। আর এই আঘাতের ফলে যৌন উত্তেজনার সময় মহিলাদের যে স্নায়বিক অনুভুতি হয়, সেই একই অনুভূতি এই ছত্রাকের গন্ধেও হয়।

সানি লিওনের যে ২০ টি ছবি মানুষ সবচেয়ে বেশিবার দেখেছে! (ভিডিও)

জানা গেছে, লাস্যময়ী সানি অন্য দশজন সাধারণ মানুষের মতোই ছিলেন। নিজের উত্তাল জীবনের ব্যতিক্রমী পথচলার ইঙ্গিত দিয়ে পরবর্তী সময়ে প্রথম চুম্বনটি করে বসেন তার সহপাঠীকে।

সানি লিওনকে পরিচয় করিয়ে দেয়ার মত বোকামি আমি করবো না। কারণ, সানি লিওনকে চিনেন না এমন মানুষ হয়ত খুঁজে পাওয়া যাবে না।
আপনি যদি মনে করে থাকেন সুপার সেক্সি সানি লিওন মুখিয়ে ছিলেন পর্নস্টার হওয়ার জন্য, তাহলে আপনি ভুল ভাবছেন। প্রথমে এ অভিনেত্রী মানুষকে সুড়সুড়ি দেয়ার ব্যবসায় আসতে চাননি; বরং তিনি হতে চেয়েছিলেন একজন নার্স। নিজেকে একজন পর্নস্টার হিসেবে কল্পনাও করেননি সানি। বস্তুত তার বয়স যখন ১৬, তখনও তিনি একজন নার্স হতে চেয়েছিলেন।
সানির বয়স যখন পনেরো, তখন তিনি কাজ করতেন একটি ব্যাকারিতে। পরে আয়কর অফিসেও কাজ করেন এই আবেদনময়ী নায়িকা।কিন্তু তার ভেতরে ছিলো নার্স হওয়ার বাসনা, এর জন্যে তিনি প্রচুর পড়াশুনা ও একটি প্রশিক্ষণ সেন্টারেও ভর্তি হয়েছিলেন। কিন্তু ভাগ্যের পরিহাসে নার্স হয়ে উঠতে পারেননি তিনি। বন্ধুর পরামর্শে জড়িয়ে পড়েন পর্ন ব্যবসায়।
বর্তমানে পর্ন ব্যবসায় না থাকলেও তার যৌন আবেদনকে কাজে লাগিয়ে তিনি বলিউডে একটা ভালো অবস্থান তৈরি করে নিয়েছেন।
জানা গেছে, লাস্যময়ী সানি অন্য দশজন সাধারণ মানুষের মতোই ছিলেন। নিজের উত্তাল জীবনের ব্যতিক্রমী পথচলার ইঙ্গিত দিয়ে পরবর্তী সময়ে প্রথম চুম্বনটি করে বসেন তার সহপাঠীকে।
আর স্কুল না পেরোতেই এক বাস্কেট বল খেলোয়াড়ের প্রেমে পড়েন তিনি। জীবনের প্রথম প্রেমের ছোয়ায় ১৬’তে পৌঁছেই কুমারীত্ব বিসর্জন দেন। কারো প্ররোচনার ধার ধারেননি। স্বেচ্ছায় সেই জীবনের পথে হেঁটে গেছেন, খেয়াল খুশী মতো চলেছেন।
কানাডার ওন্টারিওর সার্নিয়া শহরে সানির জন্ম ১৯৮১ সালের ১৩ মে। শিখ ধর্মাবলম্বী সানির বয়স যখন ১৪ বছর, তখন তার পরিবার কানাডা থেকে মিশিগানে পাড়ি দেয়। পরে ক্যালিফোর্নিয়ার লেক ফরেস্টে পাকাপাকিভাবে বসবাস শুরু করে সানির পরিবার।
এর পরের ইতিহাস তিনি নিজের হাতেই তৈরি করেছেন। বিশ্বের সেরা পর্নোস্টারদের তালিকায় তার নাম ছয় নম্বরে। কিন্তু সেই পথ থেকে তিনি এখন অনেকটাই সরে এসেছেন। এখন তিনি সেই তালিকার কথা ভাবেনও না; বরং মুম্বাইয়ের রূপালী পর্দার তারকাদের তালিকায় যতো দ্রুত সম্ভব উপরে উঠতে চাচ্ছেন তিনি। এই ক্যারিয়ারে তিনি কতদুর কি করতে পারেন তা ভবিষ্যতই বলে দেবে।
‘মাঝে মধ্যে আমি চিন্তা করে খুবই অবাক হই। আমি কোথায় ছিলাম আর এখন কোথায় আছি। কিভাবে আমার জীবনের সবকিছু পাল্টে গেল।’ তার অতীত এবং বর্তমান অবস্থান নিয়ে তার সামাজিক যোগাযোগেরমাধ্যম ফেসবুকে এমনি কথা লিখেছেন সাবেক পর্নো তারকা বলিউড অভিনেত্রী সানি লিওন। তারপর তিনি বর্ণনা করেন বিগ বস এবং বলিউডে আসার বাস্তব গল্প।
এ অভিনেত্রীর ভাষায়, ‘আমি এবং আমার স্বামী আমাদের বাড়ির সোফায় বসেছিলাম। হঠাৎ আমার কাছে বিগ বসের ব্যাপারে প্রস্তাব আসে। তারপর স্বামীর সঙ্গে আলাপ করে রাজি হয়ে যাই। আর সেই ঘটনা আমার জীবনকে পাল্টে দেয়। সে সময় আমি বলেছিলাম, ‘হ্যাঁ, আমি এই সুযোগটি কাজে লাগাব।’
তার আত্মজীবনীতে নিজের নানা প্রতিবন্ধকতার কথাও লিখেছেন সানি লিওন। তিনি লিখেছেন, ‘আমার সঙ্গে অনেকের রাস্তায় দেখা হয়, আবার আনেকেই মেইল পাঠায় তারা তাদের দাম্পত্য জীবনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আমার সঙ্গে কথা বলতে চায়। তখন চিন্তা করি যদি আমি তাদের খোলামেলাভাবে কথা বলার আশা দিতে পারতাম।
সেক্সের বিষয়টি কোনো উন্মাদনা নয়। এটা সবাই করে। এটা এমন একটা বিষয় যেটা প্রতিদিন, প্রতি সেকেন্ডে বিশ্বজুড়ে ঘটছে অথচ আমরা সবার সামনে খোলামেলাভাবে সেটা বলতে পারি না। যদি আপনি আপনার সঙ্গীদের সঙ্গে বিষয়গুলো খোলামেলাভাবে আলোচনা করতে পারেন তাহলে বিষয়টি সম্পূর্ন অন্যরকম হবে এবং আমি মনে করি, সেটা ভালো হবে।’
নিজের অতীত পেশা অ্যাডাল্ট এন্টারটেইনমেন্ট নিয়ে তিনি লিখেছেন, ‘মানুষ মনে করে আ্যডাল্ট এন্টারটেইন্টমেন্ট মানেই খারাপ কিছু। যাইহোক, আমেরিকায় দুটো মানুষ একসঙ্গে বারে দেখা করল, তারপর তারা অ্যাপার্টমেন্টে গেল তারচেয়ে অ্যাডাল্ট এন্টারটেইনমেন্ট বিষয়টি বেশি সুরক্ষিত। আপনার ওই ব্যক্তি সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই, আপনি জানেন না ওই ব্যক্তি দুইদিন বা এক সপ্তাহ আগে কি করেছে। আর এ বিষয়টি আমেরিকাতেও খোলাখুলি আলোচনা হয় না।
বারে যখন আপনার সঙ্গে কারো পরিচয় হয় এবং ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে যান তার আগে আপনার প্রশ্ন করা উচিৎ, শেষবার কখন তিনি নিজের পরীক্ষা করিয়েছেন? আপনি যখন এ ধরণের প্রশ্ন করা শুরু করবেন তখন সচেতনতা আরো বাড়বে। কিন্তু ইন্ডিয়াতে মানুষ দাবি করতে পছন্দ করে, ‘আমি বিয়ের আগে পর্যন্ত ভার্জিন থাকব’ অথবা ‘আমি ভালোবাসা এবং বিয়ের ব্যাপারে বিশ্বাসী।’ এ ব্যাপারটি আমার বাবা মাযের বেলাতেও ঘটেছে। কারণ বিয়ের আগে তারা কেউই সেক্স করেননি।’
তার এ আত্মজীবনীতে উঠে এসেছে বলিউড সিনেমায় তার প্রতিবন্ধকতা। তিনি বর্ণনা করেছেন, যখন ‘জিসম টু’ সিনেমাটি মুক্তি পেয়েছিল তখন অনেকেই সিনেমাটির পোস্টার পুড়িয়েছিল।
আমি তখন বুঝতে পেরেছিলাম এরা একদিন ঠিকই আমাকে পছন্দ করবে কিন্তু এখন আমাকে পছন্দ করে না। আমি ভয় পাচ্ছিলাম তারা আমার পোস্টারকে পুঁড়িয়েছে তারা যেন আমাকে না পোঁড়ায়! আমি তাদের চিন্তাধারা পরিবর্তন করতে পারব না।
দর্শকদের ব্যবহারে অনুশোচনা করে এ অভিনেত্রী লিখেছেন, ‘তারপরেও আমি প্রতি মুহূর্তে বিচারের সম্মুখীন হই। কেউ না কেউ আপনার দোষ বিচার করছে-ই। আপনি যখন বড় পর্দায় সিনেমায় আপনাকে উপস্থাপন করলেন তার মানে আপনি নিজেকে বিচারের কাঠগড়ায় উপস্থাপন করলেন। আমি জানি আমি কারো সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে পারব না কিন্তু আমাকে তো সুযোগ দেওয়া উচিৎ।
আমি জানি, আমার অতীত পরিবর্তন করতে পারব না। আমি এটাও জানি, অতীতে আমি যা করেছি তা ইন্টারনেট থেকে মুছে ফেলতে পারব না। কিন্তু আমি আমার অতীত নিয়ে লজ্জাবোধ করি না। আমার অতীত আমাকে আমার বর্তমান অবস্থানে নিয়ে এসেছে। আমি এ জন্য খুশি এবং আমি এ কারণে গর্ববোধ করি।
‘সেক্সি’ এই শব্দটা আমার কাছ থেকে সরিয়ে ফেলতে চাই না। এটাই আসল আমি। মানুষ বুঝতে পারছে না তারা সানি লিওনকে বড় হতে দেখছে। অ্যাডাল্ট অভিনেত্রীর বিষয়টি আমার জীবনের একটি অধ্যায় এবং এখন সে অধ্যায়টি বন্ধ হয়ে গেছে।
আমি কোনো ইমেজ ঝেড়ে ফেলতে চাচ্ছি না। আমি দুটি কাজ এক সঙ্গে করতে পারব না। তাই আমি সে অধ্যায়টি বন্ধ করে দিয়েছি এবং  বলিউডের প্রতি মনোনিবেশ করেছি।

সব সময় ব্রা পরে থাকা ভালো না মন্দ? জেনে নিন এই বিষয় সঠিক ডাক্তারি পরামর্শ ।

আশ্চর্য জনক হলেও সত্যি যে ব্রা পরে রাতে ঘুমানো বা সারাক্ষণ ব্রা পরে থাকা ভালো না মন্দ এটা নিয়ে তর্ক-বিতর্কের শেষ নেই। অনেকেই মনে করেন চব্বিশ ঘণ্টা ব্রা পরে থাকা তাঁদের ফিগার সুন্দর রাখতে সহায়তা করে, আবার অনেকেই বলেন যে এই অভ্যাসটি স্তন ক্যান্সারের কারণ! কিন্তু আসলে কোনটা সত্য? কিংবা কাদের ক্ষেত্রে ব্রা পরে থাকার নিয়মটি প্রযোজ্য? জেনে নিন বিস্তারিত সুবিধা, অসুবিধা ও স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা।

কেন এই সারাক্ষণ ব্রা পরিধান ?

যারা এই সারাক্ষণ, এমনকি রাতে ঘুমাতে যাওয়ার সময়েই ব্রা পরে থাকেন তাঁরা প্রায় সকলেই মনে করেন যে এই কাজটি তাঁদেরস্তনের আকৃতিকে সুন্দর রাখে। স্তনকে অনেক বয়স পর্যন্ত সুডৌল রাখে ও শেপ নষ্ট হতে দেয় না। কিন্তু আসলে কি তাই ? ব্রা পরা না পরার সাথে আসলে স্তনের শেপ নষ্ট হবার সম্পর্ক খুবই অল্প, কেবল ক্ষেত্র বিশেষেই এটা হতে পারে। আর নারীদের স্তনের শেপ ক্রমশ নষ্ট হবার মূল কারণ হচ্ছে বয়স, গ্রাভিটি, সন্তান জন্মদান, বাড়তি ওজন ইত্যাদি। তাই কেবল স্তন সুন্দর রাখার জন্য সারাক্ষণ ব্রা পরে থাকা অনর্থক। তবে হ্যাঁ, অনেকেরই স্তনে ব্যথা হয় চাপ লাগবে বা ঘুমাতে অসুবিধা হয়। তাঁরা পরিধান করতে পারেন ব্রা ঘুমের সময়ে। তবে অবশ্যই টাইট ব্রা নয়, বরং ঢিলেঢালা আরামদায়ক ব্রা।

স্তন ক্যান্সার হয় কি?

সারাক্ষণ ব্রা পরে থাকলে স্তন ক্যান্সার হয়, এমন কোন নিশ্চিত প্রমাণ এখন পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের কাছে নেই। আবার স্তন ক্যান্সার যে হয়ই না, সেটাও গ্যারান্টি দিয়ে বলা যাবে না। কিন্তু হ্যাঁ, সারাক্ষণ ব্যা পরে থাকার আরও কিছু স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে। যেমন, একই ব্রা সারাদিন পরে থাকায় স্তনে র‍্যাশ বা ত্বকের নানান রকম অসুখ হতে পারে। সারাক্ষণ ব্রা পরে থাকার ফলে ঘাম হয়, ফলে নানান রকম ফাঙ্গাল ইনফেকশন হতে পারে। ব্রায়ের ফিতায় কাঁধ ও পিঠে ত্বক ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে, কাঁধ বা পিঠে এবং বুকে ব্যথা হতে পারে টাইট ব্রা এর কারণে। কাপের নিচে কাঠি বসানো ব্রা কিংবা পুশ আপ ব্রা সারাক্ষণ পরে থাকলে স্তনে অস্থায়ী লাম্প দেখা দিতে পারে। এই লাম্পগুলো থেকে যে অন্য অসুখ হবেই না, এমন কোন নিশ্চয়তা নেই।

পরবেন কি পরবেন না?

কিছু ক্ষেত্রে সারাক্ষণ ব্রা পরার কোন প্রয়োজন নেই। আপনার কাপ সাইজ যদি কম হয়ে থাকে, অর্থাৎ স্তন যদি আকারে ছোট হয়ে থাকে তাহলে ব্রা পরার কোন প্রয়োজন নেই। কিন্তু অদি আপনার ব্রায়ের কাপ সাইজ হয়ে থাকে ডি বা ডি এর বেশী, অর্থাৎ যদি স্তন আকারে বড় হয়ে থাকে তাহলে ব্রা পরা আপনার জন্য ভালো। এতে স্তন শেপ হারানোর সম্ভাবনা কমবে এবং আপনি নানান রকমের অস্বস্তিকর অবস্থা থেকে পরিত্রান পাবেন। তবে অবশ্যই টাইট ব্রা পরিধান করবেন না। এবং সিনথেটিক কাপড়ের ব্রা সারাক্ষণ পরিধান করে থাকবেন না।

জেনে নিন স্তন সুডৌল, বড় ও আকর্ষণীয় করার ব্যায়াম !!

নারীর সৌন্দর্যের অন্যতম গুরত্বপূর্ণ অংশ তাদের স্তন। বিশেষ করে ১২-১৩ বছরে তাদের স্তনের গঠনে বিশেষ পরিবর্তন দেখা দেয়। প্রত্যেক নারী সুন্দর স্তনের ( best breasts )আশাবাদী তবে কয়েকটা নিয়ম মেনে চললে মেয়েরা তাদের স্তনকে সুন্দর ও আকর্ষণীয় রাখতে পারে। নিম্নে সে স্মবন্ধে আলোচনা করা হলো।

বিশেষভাবে স্তনে তিন ধরনের সমস্যা থেকে থাকে-
ক) অপুষ্ট স্তন, খ) ভীষণ ভারি বা বিশাল মোটা স্তন ও গ) ঝুলে পড়া স্তন

স্তনের সোন্দর্য বৃদ্ধির উপায়-
১। ব্যায়াম করুন। ছোট বা বড় তা বুঝে নির্দিষ্ট ব্যায়াম করুন।
২। সঠিক মাপের ব্রা পরতে হবে। অনেরে আছে সঠিক কোন মাপের ব্রা খাপ খায় না।তখন এমন ব্রা নির্বাচন করতে হবে, যা বেশি টাইট না হয় আবার বেশি ঢিলা না হয়।
৩। প্রতিদিন ২ বারের মত গরম এবয় পরে ঠান্ডা পানি ঢালুন কয়েকবার করে।
৪। যাদের স্তনের আকার একটু বড় তারা তার স্নেহ বা চর্বি যুক্ত খাবার পেরিহার
৫। স্তনের শ্রী ও আকার সুগঠিত করার জন্য সাঁতার কাটা উত্তম। তবে নিয়মিত দোলনা ও খেতে পারেন।
৬। সাকালে স্নান করার অব্যাস করুন এবং স্নানের পূ্র্বে বাথুরুমে গিয়ে কমপক্ষে ৫ মিনিট ব্যায়াম করুন।যাতে করে আপনার স্তনের পেশীতে পর্যাপ্ত চাপ পড়ে।
৭। রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে কখনোই ব্রা পরে ঘুমাবেন না।
৮।কখনোই ভুট হয়ে ঘুমাবেন না। মানে স্তন নিচের দিকে চেপে ঘুমাবেন না।
৯। স্তনের বোঁটার সুন্দর্য বৃদ্দির জন্য কোন একটি বোতল নিন। এরপর সেই বোতলে গরম পানি নিন। গরম পানির কারণে বোতল হালকা গরম হবে।এখন ঐ বোতলের মুখে আপনার স্তনের বোটা ঢুকিয়ে দিন।ততক্ষণ ঢুকিয়ে রাখুন যতক্ষণ বোতল ঠান্ডা না হয় ।

উপরোক্ত নিয়ম ছাড়াও স্তন মালিশের মাধ্যমে স্তন সুন্দর রাখা সম্ভব-
খাঁটি দুধের সাথে কয়েক ফোঁটা অলিভ অয়েল নিয়ে একটি ম্যাসেজ অয়েল তৈরী করুন। এই তেল দিয়ে স্নান করার ৩০/৪০ মিনিট আগে স্তনের নিচের দিক থেকে উপরের দিকে ম্যাসেজ করে মালিশ করবেন।এতে করে স্তনের স্বভাবিক র্কত সঞ্চালন বৃদ্ধি পাবে এবং স্তনের আকার সুডৌল রূপ দারণ করবে।ম্যাসেজেরে পর টান্ডা পানি দিয়ে স্নান করুন।

বিয়ের পর মেয়েদের নিতম্ব চ্যাপ্টা হয়ে যায় কেন ? জেনে নিন, জানলে আপনিও লজ্জা পাবেন !!

এটা প্রায়শই দেখা যায় যে, মেয়েরা চায় বিয়ের সময়ে তাদের দেখতে ছিপছিপে এবং কমবয়সী লাগুক। এ কারণে তারা বিয়ের কয়েক মাস আগে থেকেই কঠোর ডায়েটে চলে যান। এমনকি দেখা যায়, পরিবারের মানুষ এমনকি তাদের বাগদত্ত পুরুষেরাই তাদেরকে বলেন ওজন কমাতে।

তারা বেশিরভাগই মোটামুটি ২০ পাউন্ড (৯ কেজির) মতো ওজন কমানোর পরিকল্পনা করে ডায়েট শুরু করেন। অনেকের ওজন এই ডায়েটের ফলে কমে গেলেও বেশিরভাগেরই ওজনে তেমন কোনো হেরফের হয় না।

তখন প্রথম ছয় মাসের মাঝেই তাদের ওজন বেড়ে যায় দ্রুত।দেখা যায়, বিয়ের ছয় মাস পর তাদের ওজন বেড়েছে গড়ে ৪.৭ পাউন্ড (২.১ কেজি)। যারা বিয়ের আগে ওজন কমিয়েছিলেন, তাদের ওজন বাড়ার পরিমাণ আরও বেশি, প্রায় ৭.১ পাউন্ড (৩.২ কেজি)। তবে তারা বিয়ের আগে ওজন কমালেও বিয়ের পরে প্রায় ৪.৫ কেজি পর্যন্ত ওজন বেড়ে যায় তাদের।

বিয়ের পরে মেয়েরা মনে করে, সামনে তো আর কোনো বড় উপলক্ষ নেই আর তাই ওজন নিয়ন্ত্রণের দিকে তাদের তেমন লক্ষ্য থাকে না। তারা খাওয়াদাওয়া এবং ব্যায়ামের ব্যাপারে নিয়মকানুন অনুসরণ বন্ধ করে দেন, যার ফলে ওজন বেড়ে যেতে থাকে। অনেকে আবার মনে করেন, বিয়ের পরে তাদের আকর্ষণীয় ফিগার বজায় রাখার দরকার নেই, এ কারনেও তাদের ওজন এভাবে বাড়তে দেখা যায়।

বিয়ের পর মোটা হয়ে যাওয়া রোধে করণীয়

তবে কেবল মেয়েদের জন্য নয়, নারী-পুরুষ উভয়েই এই টিপস মেনে নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন ওজন। হানিমুনে গেলে খুব বেশি জাঙ্ক ফুড না খেয়ে পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার চেষ্টা করুন। যেমন – পোলাও, বিরিয়ানি না খেয়ে গ্রিল করা চিকেন বা মাছ খেতে পারেন। সাথে খাবেন প্রচুর পরিমানে সালাদ ।

আর মিষ্টি জাতীয় খাবার যেমন কেক, পেস্ট্রি খাওয়ার বদলে ফ্রুট সালাদ আর ফলের রস খেতে পারেন। ভ্রমনে গেলে রিচ ফুড এমনিতেও এড়িয়ে চলা উচিত।

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করে ভিটামিন বি জাতীয় ওষুধ খেতে পারেন। নতুন পরিবেশে নতুন দায়িত্ব নেয়ার জন্য প্রয়োজনীয় এনার্জি জোগাবে ভিটামিন বি, বাড়ি খাবারের প্রয়োজন পড়বে না।

বিয়ের পর প্রায় প্রতিদিনই কোন না কোন আত্মীয়ের বাসায় নতুন জুটির দাওয়াত থাকাটাই স্বাভাবিক। আর এতেই ওজন অনেকটা বেড়ে যায়। তাই বলে কোথাও দাওয়াতে গেলে একদমই যে খাবেন না তা কিন্তু নয়, ঘি ও তেল মশলা দেয়া খাবার কম নিয়ে সালাদের পরিমান বাড়িয়ে দিন।

কোমল পানীয়ের বদলে পানি পান করুন

শরীরে ক্যালসিয়ামের অভাব হলে মোটা হয়ে যাবার প্রবনতা দেখা দেয়। তাই চা– কফি ও কোল্ড ড্রিঙ্কস খাওয়া কমিয়ে দিন। আর রাতে শুতে যাবার আগে এক গ্লাস দুধ খাবার কথা ভুলবেন না, কারন দুধই ক্যালসিয়ামের সব চাইতে বড় উৎস। কষ্ট করে হলেও ব্যাপারটা মেনে চলুন।

জেনে নিন স্তন বড় করার সব থেকে সহজ উপায়টি সম্পর্কে বিস্তারিত !!

নারীর প্রকৃত সুন্দর্য ফুটাতে সঠিক মাপের সুডৌল স্তনের জুড়ি নেই। বড় ব্রেস্ট মেয়েদের যৌন আকর্ষনীয় করে তোলে । আজকাল বেশিরভাগ নারী স্তনের গুরুত্ব বোঝে। অনেকে আছেন স্তন বড় ও সুন্দর করার নিয়ম খুজছেন বা অনেক পন্থা ইতিমধ্যেই অবলম্বন করছেন। কেউ হয়ত ভালো ফলাফল পেয়েছেন কেউ আবার পান নাই।

এখন প্রাকৃতিকভাবেই ব্রেস্ট বড় করা যায়, সার্জারীর প্রয়োজন তেমন হয় না। সাধারণত ৩৪-৩৬ মেয়েদের স্ট্যান্ডার্ড ব্রেস্ট সাইজ। তবে অনেকের ব্রেস্ট আকারে ছোট হয়। এ লেখাটি তাদের জন্য যাদের ব্রেস্টের মাপ ৩৪-৩৬ এর নিচে। নিম্নে প্রাকৃতিকভাবে ব্রেস্ট বড় করার উপায় আলোচনা করা হলোঃ

১. হাত ঘষে গরম করে দুই হাত স্তনের নিচে হালকা চেপে ধরে ডানহাত ঘড়ির কাটার দিকে আর বাম হাতে ঘড়ির কাটার উল্টা দিকের মত ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ১০-১৫ মিনিট এভাবে ১০০…
থেকে ৩০০ বার ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। মাস খানেকের মধ্যে স্তনের সাইজ কিছুটা বাড়তে পারে। সেই সাথে পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে হবে, রাতে অনেক ঘুমাতে হবে। ব্রেস্টে নিয়মিত ম্যাসাজ করলেও এটা ধীরে ধীরে বড় হয়। আবার নিয়মিত সেক্স করলে ও তা বড় হয় (বিবাহিতদের…

জন্য)। তবে এসময় নিজের অর্গ্যাজমের উপর নজর দিতে হবে। অনেকক্ষণ ধরে সেক্স করার চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে এবং সেক্সে পুরোপুরি তৃপ্ত হওয়ার চেষ্টা করতে হবে। নিজেকে শারীরিক এবং মানসিকভাবে পুরো সক্রিয় থাকতে হবে। এতে দেহে হরমোনের সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে যা ব্রেস্ট বড় করতে সহায়তা করবে।

২. মেয়েদের জন্য ব্রেস্টের কিছু স্পেশাল ব্যায়াম আছে যেমন: বেঞ্চ প্রেস, বাটারফ্লাই প্রেস, পুশ-আপ (বুকডাউন) নিয়মিত এগুলো করে স্তনের টিস্যুতে ব্লাড ফ্লো বাড়াতে হবে। এতে বুকের পেশিগুলো সঠিক শেপে এসে স্তনকে সুগঠিক করবে। এটা অনেকটা বডিবিল্ডাররা যেভাবে শরীরের পেশি বৃদ্ধি করে, সেভাবে কাজ করবে। দিনে বেশ কয়েকবার দুইহাত দুইদিকে প্রসারিত করে আবার এক করুন।

৩. হাত ঘষে গরম করে দুই হাত স্তনের নিচে হালকা চেপে ধরে ডানহাত ঘড়ির কাটার দিকে আর বাম হাতে ঘড়ির কাটার উল্টা দিকের মত ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে ১০-১৫ মিনিট এভাবে ১০০ থেকে ৩০০ বার ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে ম্যাসাজ করুন। মাস খানেকের মধ্যে স্তনের সাইজ কিছুটা বাড়তে পারে। সেই সাথে পুষ্টিকর ও স্বাস্থ্যসম্মত খাবার খেতে হবে, রাতে অনেক ঘুমাতে হবে।

৪. বাথরুমে স্নান করার সময় হাত দিয়ে ব্রেস্টের চারপাশ ১০/১৫ মিনিট ম্যাসাজ করবেন। চাইলে ম্যাসাজের সময় হালকা গরম করে সামান্য সরিষার তেল বা খাঁটি মধু ব্যবহার করতে পারেন। আপনার শরীর যদি রোগা হয় তাহলে ২/৩ মাস সুষম খাদ্য খায়ে শরীরটা ঠিক করেন, দুধ, ডিম, ফল একটু বেশি খেলে উপকার পাবেন। চিন্তামুক্ত থাকার চেষ্টা করবেন। শরীর বাড়ার সাথে সাথে আপনার স্তন ও বড় হবে। ম্যাসাজটা চালিয়ে যাবেন। যদি পারেন তাহলে দিনে দুই বার ১০ থেকে ১৫ মিনিট আলতো ভাবে টিপবেন বা ম্যাসাজ করবেন। আর এইসময় কিন্তু সঠিক মাপের ব্রা ব্যবহার করতে হবে। নইলে ব্রেস্ট ঝুলে যেতে পারে।

৫. আপনি যখন থেকে ব্রেস্ট বড় করার জন্য ব্যায়াম ও ম্যাসাজ শুরু করবেন, তখন থেকে ব্রেস্ট এনলার্জিং ক্রিম ব্যবহার করা বন্ধ করে দিন (যদি ম্যাসাজ শুরুর আগে থেকে ব্রেস্ট এনলার্জিং ক্রিম ব্যবহার করে থাকেন)। কারণ এ ধরণের ক্রিম সাধারণত কোন কাজে আসে না। এছাড়া ব্রেস্ট বড় করার জন্য কোন পিল সেবন করবেন না। এগুলোর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া রয়েছে। ব্রেস্ট ক্যান্সার পর্যন্ত হতে পারে এসব ক্রিম/পিল ব্যাবহার করার ফলে।

এক বা দুই সপ্তাহ পর পর নিজের ব্রেস্ট মাপুন, টাইট জামাকাপড় পরিধান করুন এবং সঠিক কাপ সাইজের ব্রা পরিধান করুন। এছাড়া ব্রেস্ট বড় করার জন্য ব্রেস্ট ইমপ্লান্ট সার্জারী রয়েছে। এটি ন্যাচারাল নয় বলে না করাই ভালো এবং এ পদ্বতিটি ব্যয়বহুল।

নারীর কি পুরুষের মতো বীর্যপাত হয় ?

নারীর যোনিমুখের দু’পাশে বিশেষ গ্রনথি আছে । কামোত্তেজনার সময় এই গ্রনথি থেকে এক রকম তরল রস নির্গত হয়, যা কিনা সারা যোনি-মুখকে ভিজিয়ে পিচ্ছিল করে দেয়, এর ফলে পুরুষের লিঙ্গ তার গভীরে প্রবিষ্ট করতে সুবিধে হয় ।তরে বাইরে থেকে এই গ্রনথি দৃশ্যতনয়, চামড়ার আড়ালে ঢাকা থাকে । কিন্তু যোনিমুখে রস নিঃসরণ সরাসরি চোখে দেখা যায় । সবসময় এই রস নিঃসৃত হয় না । কেবল যখনপ্রবল কামোত্তেজনা সূষ্টি হয়- তখনি বার্থোলিন গ্রনথি এই রস সৃষ্টি করে । নারীর এই কামরসের মতো পুরুষের কামোত্তেজনার প্রথম অবস্হায় এক ধরনের তরল রস নিঃসরন হয় । অনেকের ভুল ধারনা আছে, সেই রসের মধ্যে শুত্রূবীজানু থাকে । আসলে তাদের সেই ধারনা ভুল । সেই রসে কোন শুত্রূবীজানু থাকে না । আবার নারীদেহের এই কামরসের সঙ্গেডিমবোকোষের কোন সস্পর্ক নেই । তবে একে যে অন্যের সহায়ক এ কথা বলা নিস্পয়োজন । অনেকেই বলে থাকেন, রতিক্রিয়া শেষে পুরুষের মতো কি নারীর যোনি থেকেও বীর্যপাত ঘটে ? এক কথায় এর জবাব হল’না ।’ মেয়েদের কোনো বীর্যপাত হয় না । তাদের বীর্য হলো ডিমবোকোষ ।
তবে মানুষের মনে এ কথা জাগার কারনহলো, যৌন-মিলনের ইচ্ছা জাগলে কিংবা মিলনে প্রবৃত্ত হলে,বিশেষ করে পুরুষের লিঙ্গ সঞ্চারনের ফলেতাদের যোনিপথে যে কামরস নিঃসৃত হয়, অনেকেই ভুল করে সেই রসকে বীর্য বা শুক্র বলে ধরে নেয় । আর এধরনের রস-নিঃসরন পুরুষের লিঙ্গ-নালী থেকেও বেরিয়ে থাকে । নারী-দেহে এই রস ক্ষরন রতি উত্তেজনা থাকা পর্যন্ত কম বেশী বর্তমান থাকতে দেখা যায় ।

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে(ভিডিও সহ)

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওস

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স ক

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওস

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স ক

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

দেখুন পার্কে কিভাবে প্রেমিক প্রেমিকা সবার সামনে সেক্স করল ভিডিওসহ

 

ভিডিওটি দেখতে ক্লিক করুন

শরীরের একঝলক ট্যাটু দেখিয়ে তুফান তুললেন স্বস্তিকা (ভিডিও)

পাড়ার কাকু হঠাৎ একদিন বিয়ে করে আনলেন আবেদনে ভরপুর এক সুন্দরীকে। পাড়ার ইয়ং ছেলেদের আর কে পায়! উমা বৌদির স্পর্শ পেতে সবার প্রাণ ওষ্ঠাগত। এমন সময় হারিয়ে গেলেন সেই আদরের উমা বৌদি। যাকে একঝলক দেখতে মুখিয়ে বসেছিলেন ‘হইচই’-এর দর্শকেরাও। অবশেষে দেখা মিলল তার।

শুধু তিনিই নন, উঁকি মারল তার শরীরের ট্যাটুও। বৌদি নাচলেন, খুলে পড়ল আঁচল। ব্লাউজের ফাঁকে খোলা পিঠ স্পর্শ করলেন দেবররা। টানাটানি চলল আঁচল ধরে। আঁচল সরিয়ে দেখা মিলল খোলা কোমর। চারপাশে নাচলেন ঠাকুরপোরা। মদের ফোয়ারায় ভিজল সারা শরীর। আর কি চমক নিয়ে আসছেন উমা বৌদি? তার জন্য অবশ্য অপেক্ষা করতে হবে আর কয়েকটা দিন।

ভর দুপুরে বৌদির সঙ্গে লুকিয়ে দেবরের প্রেম-খুনসুটি। জমে গিয়েছিল নতুন ওয়েব সিরিজ ‘দুপুর ঠাকুরপো’। দেবরদের হৃদয়ে প্রেম ও যৌনতায় সুড়সুড়ি জাগিয়ে উধাও হয়ে গিয়েছিলেন উমা বৌদি তথা স্বস্তিকা। এবার ‘হইচই’-এর ডিজিটাল প্লার্টফর্মের দৌলতে ফের ফিরছেন সবার প্রিয় উমা বৌদি। শুরু হচ্ছে দুপুর ঠাকুরপো ওয়েব সিরিজের দ্বিতীয় পর্ব। ৯ নভেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে সিরিজটি।

ইতোমধ্যে ভোজপুরী ‘লাগেলু’ গানে দেখা মিলেছে উমা বৌদির। ফেসবুক আর ইউটিউবে চলছে সেই দুরন্ত ট্রেলার। স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়ের নাচ ইতোমধ্যেই দেবরদের মনে সাড়া ফেলে দিয়েছে। লাল ঠোঁটে হালকা কামড়ে স্বস্তিকা উষ্ণতার পারদ চড়িয়েছেন চড়চড় করে। ইউটিউবে এই গানের ভিউ ছাড়িয়েছে সাত হাজার। ফেসবুকে তিন লাখ। তবে বৌদির আরো ঝলক দেখতে আপনাকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে।

জেনে নিন অকাল বীর্যপাতে কি কারন এবং করনীয় !!

পুরুষ যদি উত্তেজনারশুরুতেই বীর্য ত্যাগ করে তবে তাকে অকাল বীর্যপাত বলে। নারীরসাথে দৈহিক মিলনের সময় পুরুষ নানা ভাবে নারীকে উত্তেজিত করে। এই সময় উভয়েই উভয়েই শরীর স্পর্শ করে এবং নানাভাবে আদর করে। অনেক পুরুষের এই সময়েই বীর্যপাত হয়ে যায়। এতে করে পরবর্তী যৌন উত্তেজনা আরতীব্র হয় না। অকাল বীর্যপাতের ব্যাপারে কয়েকটি পরামর্শ হলো–

লিঙ্গে স্পর্শ না করা।
প্রথমেই তীব্র উত্তেজিত না হওয়া ।
পারস্পরিক হস্তমৈথুন।
লিঙ্গের উত্তেজনা ধরে রাখা ইত্যাদি ।

চিকিৎসা :

ডায়াজিপাম অথবা লিব্রিয়ামের ব্যবহার –

যৌনমিলনের আধাঘন্টা আগে ট্যাবলেট মেলারিল ৫ থেকে ১০ মিঃগ্রাম সেবন।

ফোঁটা ফোঁটা বীর্যপাত পুরুষের যৌন জীবনের একটি সমস্যা। বিভিন্ন শারীরিক এবং মানসিক কারণে এই অবস্থার সৃষ্টি হতে পারে। সাইকোজেনিক কারণে অবশ্য এই সমস্যা হয় বেশি। অনেক ক্ষেত্রেআঘাতজনিত কোনো কারণেও এটি হতে পারে। বিভিন্ন কারণের মধ্যে উল্লেখযোগ্য কারণগুলো হলো–
কঠিন ধর্মীয় কুসংস্কার । গর্ভাবস্থার ভয় । নারীর কাছ থেকে লাঞ্ছিত হওয়া । সেলিবেসি অবস্থার চাপ । বীর্যদানে কার্পণ্য মনোভাব ইত্যাদি ।

সোনাক্ষীর গোসলের ভিডিও ইন্সটাগ্রামে ভাইরাল, ভিডিও

চলতি বছরের প্রথম দিকে মুক্তি পায় সোনাক্ষীর ‘নূর’। ওই সিনেমা থেকেই অভিনেত্রীর গোসলেরর দৃশ্যটি নেয়া হয়েছে

নতুন প্রজন্মের নায়িকা হলেও স্রোতে গা ভাসাতে নারাজ অভিনেত্রী সোনাক্ষী সিনহা। পর্দায় অন্তরঙ্গ দৃশ্য, চুমুর দৃশ্য থেকে নিজেকে সরিয়ে রেখেছেন আজ অব্দি।

বাস্তব জীবনেও তাকে নিয়ে খুব একটা গুঞ্জন শোনা যায় না। অথচ এই নায়িকার গোসলের একটি ভিডিও সম্প্রতি ইন্সটাগ্রামে ভাইরাল হয়ে গেছে।

এই ভিডিওর কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ সমালোচনার মুখেও পড়েছেন শত্রুঘ্ন সিনহার মেয়ে। কিন্তু সোনাক্ষীর যে ভিডিওটি ভাইরাল হয়েছে, সেটি বর্তমান সময়ের নয়। বরং একটি সিনেমার দৃশ্য কাটছাঁট করে তা এমএমএস আকারে প্রকাশ করা হয়েছে ইন্সটাগ্রামে।

চলতি বছরের প্রথম দিকে মুক্তি পায় সোনাক্ষীর ‘নূর’। ওই সিনেমা থেকেই অভিনেত্রীর গোসলেরর দৃশ্যটি নেয়া হয়েছে।

তবে এই প্রথম নয়, এর আগে ২০১৫ সালেও ভাইরাল হয় তার একটি এমএমএস। তবে সেটির কোন নির্ভরযোগ্য তথ্য পাওয়া যায়নি। এদিকে গত শুক্রবার মুক্তি পেয়েছে সোনাক্ষী অভিনীত ‘ইত্তেফাক’ ছবিটি। ১৯৬৯ সালের সিনেমার এই রিমেকে আরও অভিনয় করেছেন সিদ্ধার্থ মালহোত্রা ও অক্ষয় খান্না।

সূত্র: ইন্ডিয়া.কম