মধ্যপ্রাচ্যর মেয়েরা যে এত খারাপ হতে পারে লাইভ ভিডিওটা না দেখলে আপনি বুঝতে পাবেনা না

ইন্টানেরট থেকে প্রকাশিত সকল ভিডিওর দায় সম্পুর্ন ইন্টারনেটের এর । এর সাথে আমরা কোন ভাবে সংশ্লিষ্ট নয় এবং আমাদের পেইজ কোন প্রকার দায় নিবেনা। ভিডিওটির উপর কারও আপত্তি থাকলে তা অপসারন করা হবে। প্রতিদিন ঘটে যাওয়া নানা রকম ঘটনা আপনাদের মাঝে তুলে ধরা এবং সামাজিক সচেতনতা আমাদের লক্ষ্য এবং উদ্দেশ্য ।

স্পোর্টস ডেস্ক: সাবেক ক্লাব সতীর্থ নেইমার রিয়াল মাদ্রিদে যোগ দিলে ‘ভয়াবহ অবস্থার সৃষ্টি হবে’ বলে মন্তব্য করেছেন বার্সেলোনার আর্জেন্টাইন সুপার স্টার লিওনেল মেসি। রেকর্ড ২২২ মিলিয়ন ইউরোর বিনিময়ে বার্সেলোনা ছেড়ে প্যারিস সেন্ট জার্মেইয়ে (পিএসজি) যোগ দিয়েছেন ব্রাজিলীয় তারকা নেইমার। তবে প্যারিসে গোটা মৌসুম জুড়ে নেইমারকে নিয়ে চলেছে নানা গুঞ্জন।

২৬ বছর বয়সি নেইমার প্যারিসে সুখে নেই বলে যে গুঞ্জন শুরু হয়েছে তার ঢেউ আছড়ে পড়েছে ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড থেকে শুরু করে রিয়াল মাদ্রিদ পর্যন্ত। তিনি পিএসজি ছেড়ে দেয়ার জন্য ইংলিশ জায়ান্ট ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও স্প্যানিশ জায়ান্ট রিয়াল মাদ্রিদের সঙ্গে ঘনিষ্ট যোগাযোগ রক্ষা করছেন বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমের রিপোর্টে বলা হচ্ছে।

ক্যাম্প ন্যুতে নেইমারকে সঙ্গী করে মেসি জয় করেছেন চারটি ট্রফি। তার মতে চির প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদে তার এই বন্ধু যোগ দিলে সেটি হবে খুবই ভয়ানক ব্যাপার। টিওয়াইসি স্পোর্টসকে মেসি বলেন, ‘বিষয়টি হবে ভয়াবহ। কারণ নেইমারের নামের পাশে জড়িয়ে আছে বার্সেলোনার নাম।

যদিও এখন বার্সেলোনার সঙ্গে তার সম্পর্ক চুকে গেছে, তারপরও এখানে থেকেই তিনি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও লা লীগার মত গুরুত্বপুর্ন শিরোপা জয় করেছেন। তাই তিনি যদি মাদ্রিদে যোগ দেন তাহলে সেটি হবে আমাদের জন্য তথা বার্সেলোনার জন্য একটি বড় বিপর্যয়। আর ফুটবলের কথা যদি বলি, তাহলে এমনিতেই শক্তিশালী রিয়াল মাদ্রিদ আরো বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।’

নেইমার চলে যাবার পরও চলতি মৌসুমে বার্সেলোনা জয় করেছে লাল লীগা ও কোপা দেল রে’র শিরোপা। অপরদিকে ঘরোয়া ফুটবলে সুবিধা করতে না পারলেও ফের চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে পৌঁছেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আগামী ২৬ মে ফাইনালে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ক্লাব লিভারপুলের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালের আগে যথা সময়েই উজ্জীবিত হওয়ার রসদ পেয়ে গেল রিয়াল মাদ্রিদ। পায়ের গোঁড়ালির আঘাতের কারণে কয়েক দিন পর গতকাল দলের অনুশীলনে ফিরেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

রিয়ালের নিজস্ব ওয়েবসাইটে বলা হয়, ‘ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো এবং দানি কারভাজাল সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন। অর্থাৎ চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালে পূর্ণ শক্তির দলই পাচ্ছেন জিনেদিন জিদান।’

কারভাজাল উরুর সমস্যায় ভুগছিলেন এবং গত ৬ মে বার্সেলোনার বিপক্ষে ম্যাচে পায়ের গোঁড়ালিতে আঘাত পান রোনালদো।

টানা তৃতীয়বার শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে আগামী ২৬ মে শনিবার কিয়েভ-এ চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে লিভারপুলের মোকাবেলা করবে রিয়াল মাদ্রিদ।

যদিও এখন বার্সেলোনার সঙ্গে তার সম্পর্ক চুকে গেছে, তারপরও এখানে থেকেই তিনি চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ও লা লীগার মত গুরুত্বপুর্ন শিরোপা জয় করেছেন। তাই তিনি যদি মাদ্রিদে যোগ দেন তাহলে সেটি হবে আমাদের জন্য তথা বার্সেলোনার জন্য একটি বড় বিপর্যয়। আর ফুটবলের কথা যদি বলি, তাহলে এমনিতেই শক্তিশালী রিয়াল মাদ্রিদ আরো বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।’

নেইমার চলে যাবার পরও চলতি মৌসুমে বার্সেলোনা জয় করেছে লাল লীগা ও কোপা দেল রে’র শিরোপা। অপরদিকে ঘরোয়া ফুটবলে সুবিধা করতে না পারলেও ফের চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে পৌঁছেছে রিয়াল মাদ্রিদ। আগামী ২৬ মে ফাইনালে ইংলিশ প্রিমিয়ার লীগের ক্লাব লিভারপুলের বিপক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা।

চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালের আগে যথা সময়েই উজ্জীবিত হওয়ার রসদ পেয়ে গেল রিয়াল মাদ্রিদ। পায়ের গোঁড়ালির আঘাতের কারণে কয়েক দিন পর গতকাল দলের অনুশীলনে ফিরেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

রিয়ালের নিজস্ব ওয়েবসাইটে বলা হয়, ‘ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো এবং দানি কারভাজাল সতীর্থদের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন। অর্থাৎ চ্যাম্পিয়ন্স লীগ ফাইনালে পূর্ণ শক্তির দলই পাচ্ছেন জিনেদিন জিদান।’

কারভাজাল উরুর সমস্যায় ভুগছিলেন এবং গত ৬ মে বার্সেলোনার বিপক্ষে ম্যাচে পায়ের গোঁড়ালিতে আঘাত পান রোনালদো।

টানা তৃতীয়বার শিরোপা জয়ের লক্ষ্যে আগামী ২৬ মে শনিবার কিয়েভ-এ চ্যাম্পিয়ন্স লীগের ফাইনালে লিভারপুলের মোকাবেলা করবে রিয়াল মাদ্রিদ।

কিভাবে ঘরোয়া ৩টি উপায়ে ত্বকের দাগ দূর করবেন

বকের রঙ যেমনই হোক না কেন ত্বক যদি পরিষ্কার থাকে তাহলেই আসল সৌন্দর্য ফুটে উঠে। রঙ ফর্সাকারী কেমিক্যাল যুক্ত ক্রিম, ফেসওয়াশ, মাস্ক ব্যবহার করে যদি শুধু ত্বকের রঙ ফর্সা করতে গিয়ে ত্বকে ব্রণের দাগ বা ছোপ ছোপ দাগ করে ফেলেন তাহলে কি তা দেখতে ভালো দেখাবে? মোটেই নয়। তাই রঙ ফর্সাকারী নয় বরং ত্বকের দাগ দূর করার দিকে নজর দিন।

আজকে জেনে নিন ব্রণের দাগ, রোদে পোড়া দাগ বা অন্যান্য সমস্যায় ত্বকে দাগ পড়ার যন্ত্রণা থেকে মুক্ত থাকার ঘরোয়া গোপন ৩ টি কৌশল।

ঘরোয়া ৩টি উপায়ে ত্বকের দাগ দূর করুন-
কিভাবে ঘরোয়া ৩টি উপায়ে ত্বকের দাগ দূর করবেন
কিভাবে ঘরোয়া ৩টি উপায়ে ত্বকের দাগ দূর করবেন
১) টমেটো ও বেসনের মাস্ক

বেসন ত্বকের দাগ দূর করতে অনেক আগে থেকেই ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এবং পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ত্বকের নানা ধরণের দাগ দূর করতে এর জুড়ি নেই।
– ২ টেবিল চামচ বেসনের সাথে প্রয়োজন মতো টমেটো রস মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিন।

– এরপর এই পেস্টটি মুখ, ঘাড় ও গলায় ভালো করে লাগিয়ে নিন।

– ১৫ মিনিট পর পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।

– সপ্তাহে ২ বার ব্যবহার করবেন এই মাস্কটি।
২) শসা ও লেবুর রসের মাস্ক

লেবুর রসের ব্লিচিং এজেন্ট ত্বকের দাগ ফিকে হয়ে আসতে সহায়তা করে এবং শসা প্রাকৃতিক ময়েসচারাইজার হিসেবে ত্বকের যত্ন নেয়।

– ৩ টেবিল চামচ শসা ও ৩ টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে মিশ্রন তৈরি করে নিন।

– এই মিশ্রণটি মুখ, ঘাড় ও গলায় লাগিয়ে রাখুন ১৫ মিনিট।

– এরপর সাধারণ পানি দিয়ে ধুয়ে নিন। এই মাস্কটি প্রতিদিনই ব্যবহার করতে পারবেন।
৩) দুধ, মধু ও লেবুর রসের মাস্ক

প্রাচীনকাল থেকেই দুধ ও মধু রূপচর্চায় ব্যবহার হয়ে আসছে। পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিহীন উপাদান বলে এর কদর রয়েছে বেশ।

– ১ টেবিল চামচ দুধ, ১ টেবিল চামচ মধু ও ১ টেবিল চামচ লেবুর রস মিশিয়ে নিন ভালো করে।

– এরপর মুখ, ঘাড় ও গলায় লাগিয়ে রাখুন মাত্র ১০ মিনিট।

– পানি দিয়ে ধুয়ে নিন ভালো করে এবং তোয়ালে আলতো চেপে মুখ শুকিয়ে ফেলুন।

– সপ্তাহে ২-৩ দিন ব্যবহার করলে ভালো ফল পাবেন।

তাৎক্ষণিকভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে কার্যকরী ফেসপ্যাক

রাতে ঘুম ভালো না হলে কিংবা আগের দিনটি ভালো না কাটলে পরিমিত ঘুম হলেও ত্বক অনেকটা মলিন দেখায়। সকালে ঘুম থেকে উঠে যদি মলিন কালচে ত্বক নজরে পড়ে তাহলে মনটাই খারাপ হয় যায়। দিনের শুরুটাই নষ্ট। আর যদি সেই দিন স্পেশাল কিছু থাকে তাহলে তো কথাই নেই, দিনটাই মাটি। অনেকেই ভাবেন তাৎক্ষণিকভাবে তো আর ত্বক উজ্জ্বল করা যাবে না এবং ত্বকের কালচে ভাবও দূর করা যাবে না, তাহলে কি করা যায়। চিন্তা করবেন না, তাৎক্ষণিক ভাবেই ত্বকের উজ্জলতা ফিরে পাওয়ার রয়েছে দারুণ কার্যকরী কৌশল। আজকে চলুন শিখে নেয়া যাক কৌশলটি।

তাৎক্ষণিকভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে কার্যকরী ফেসপ্যাক-
তাৎক্ষণিকভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে কার্যকরী ফেসপ্যাক
তাৎক্ষণিকভাবে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে কার্যকরী ফেসপ্যাক

যা যা লাগবে:
>৩ টেবিল চামচ চাল
>৩ টেবিল চামচ তিলবীজ
>১ কাপ পানি

পদ্ধতি:

প্রথমে চাল ধুয়ে পানি ঝড়িয়ে নিন এরপর তিল ও পানি একসাথে মিশিয়ে ১ কাপ পানিতে ভিজিয়ে রাখুন সারারাত।
>সকালে পানি ঝড়িয়ে হামান দিস্তায় পিষে অথবা গ্রাইন্ডারে গ্রাইন্ড করে মিশ্রণ তৈরি করুন। একেবারে মিহি করে ফেলবেন না, আবার অনেক বড় দানাও রাখবেন না এভাবে পিষে নিন।
>এই মিশ্রণটি সকালে স্ক্রাবের মতো করে পুরো ত্বকে লাগিয়ে নিন এবং ২ মিনিট রেখে দিন।
>২ মিনিট পর আলতো করে ঘষে নিন এবং ঠাণ্ডা পানিতে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।
>আপনি চাইলে এই স্ক্রাবটি দিয়ে পুরো দেহ স্ক্রাব করে নিতে পারেন দেহের ত্বকের তাৎক্ষণিক উজ্জলতার জন্য।
>একটি এয়ার টাইট কনটেইনারে ভরে ৭ দিন পর্যন্ত ফ্রিজে সংরক্ষণ করতে পারেন এই স্ক্রাবটি। তবে ভালো ফলাফলের জন্য দুদিন পর পর নতুন করে মিশ্রণ বানিয়ে নিন।

কার্যকারণ:
অনেকে ভাবতে পারেন এই প্যাকটি ব্যবহারের ফলে ঠিক কি কারণে ত্বকে তাৎক্ষণিকভাবে উজ্জ্বলতা আসবে। তাহলে জেনে নিন এর কার্যকারণ-
>চালের দানা ত্বকে স্ক্রাবের মতো ব্যবহৃত হয়, যার ফলে ত্বকের উপরের মরা চামড়া খুব ভালো করে দূর হয়ে যায়। সেই সাথে ত্বকের উপরিভাগে জমে থাকা ময়লা দূর করে ত্বকের আসল দীপ্তি ফিরিয়ে আনতে সহায়তা করে।
>তিলবীজ ত্বকের জন্য অনেক কাজকরি একটি উপাদান। তিলের তেল অনেক আগে থেকেই রূপচর্চার কাজে ব্যবহার হয়ে আসছে। এই মিশ্রণের পিষে নেয়া তিল ত্বককে নারিশ ও ময়েসচারাইজ করে, যা ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধিতে সহায়তা করে তাৎক্ষণিকভাবেই।

কোন জিনিসটি সপ্তাহে ১বার ব্যবহার করলে যৌবন থাকবে আজীবন

সৌন্দর্যের দিক থেকে জাপানিজ নারীরা সবসময়েই অনবদ্য। বিশেষ করে তাঁদের ঝলমলে চুল এবং নিখুঁত ত্বকের কারণে। এমন অনেক জাপানিজ চিত্রনায়িকা ও মডেলরা আছেন যাঁদের সত্যিকারের বয়স অনেক বেশি, কিন্তু দেখলে মনে হয় এখনও ফুরফুরে যৌবন ধরা রয়েছে! বিশ্বজুড়েই জাপানিজ নারীদের এই চির যৌবনের একটা রহস্যের বিষয় বৈকি।মজার ব্যাপার হচ্ছে, তাঁদের এই চির যৌবনের পেছনে যে উপাদানটি সবচেয়ে বেশি কাজ করে তা হল ‘ভাত’। কি, অবাক হচ্ছেন? হ্যাঁ, জাপানিজদের বয়স ধরে রাখে ভাতের তৈরি একটি ফেস প্যাক।

যৌবন

আসুন তাহলে জেনে নিই সেই জাদুকরী ফেসপ্যাকটির কথা,যে জিনিসটি সপ্তাহে ১বার ব্যবহার করলে থাকবে আজীবন যৌবন ধরে রাখার নিশ্চয়তা।

যৌবন ধরে রাখার উপকরণ:
৩ টেবিল চামচ ভাত
১ টেবিল চামচ মধু
১ টেবিল চামচ গরম দুধ

চাল সিদ্ধ করুন। অর্থাৎ ভাত রান্না করুন। এবার চাল থেকে পানি আলাদা করে ফেলুন বা মাড় ফেলে দিন।
-গরম ভাত চটকে নিন, নাহলে পরে শক্ত হয়ে যাবে। এর সাথে হালকা গরম বা উষ্ণ দুধ এবং মধু দিয়ে ভাল করে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন।

-প্রথমে মুখ ভাল করে ধুয়ে ফেলুন। সম্ভব হলে কোন হালকা ক্লিনজার দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন।
মুখ শুকিয়ে গেলে ভাতের প্যাকটি মুখ ও ঘাড়ে ভাল করে লাগান।
-প্যাকটি শুকিয়ে গেলে ভাত সিদ্ধ পানি বা মাড় দিয়ে মুখ ও ঘাড় ধুয়ে ফেলুন।
– যৌবন দরে রাখতে সপ্তাহে একবার ব্যবহার করুন।

যৌবন ধরে রাখার এই প্যাকটি যেভাবে কাজ করে
ভাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ই যা ত্বককে ক্ষতিকর উপাদান থেকে রক্ষা করে থাকে ও তারুণ্য ধরে রাখে। তার সাথে সাথে সানবার্নও প্রতিরোধ করে। এছাড়া এতে লিনোলিক এসিড যা ত্বকের বলিরেখা দূর করে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি করে।

ভাতের মাড়ে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান আছে যা ত্বকের পানির পরিমাণ বজায় রাখার পাশপাশি রক্ত চলাচল ঠিক রাখে।

ব্রণের দাগ দূর করার ৮টি সহজ উপায় জেনে নিন

ব্রন খুবই অস্বস্তিকর একটি সমস্যা। কম বেশি সবাই এ সমস্যায় ভোগেন। তবে মুখে ব্রন উঠে যতটা না অস্বস্তিতে ফেলে তার থেকে বেশি অস্বস্থি হয় যখন ব্রণের দাগ মুখে গেড়ে বসে। আর তখনই ভর করে দুশচিন্তার। যার কারনে ব্রনের প্রকপ আরও বেড়ে যায় এবং তার থেকে সৃষ্টি হয় দাগের। তাই ব্রন ও ব্রনের দাগের সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য রয়েছে ব্রণের দাগ(Acne scars) দূর করার সহজ ৮ টি উপায়। চলুন জেনে নেই ব্রণের দাগ দুর করার উপায়গুলি –ব্রণের দাগ
ব্রণের দাগ দূর করার ৮টি সহজ উপায় জেনে নিন

১. ব্রণের দাগ দূর করতে মধু একটি কার্যকারি উপাদান। রাতে ঘুমানোর আগে মুখ ভালো করে ধুয়ে মধু লাগান। সারারাত তা রেখে সকালে ঘুম থেকে উঠে তা ধুয়ে ফেলুন।

২. মধুর সাথে দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে শুধুমাত্র দাগের উপর লাগিয়ে ১ ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন। চাইলে সারারাতও রাখতে পারেন। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মুখের দাগ দূর হয়ে গোছে।

৩. ২-৩ টি এস্পিরিন ট্যাবলেট এর সাথে ২ চামচ মধু(Honey) ও ২-৩ ফোঁটা পানি মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। এস্পিরিন এর স্যালিসাইলিক এসিড ব্রণের দাগ দূরের জন্য খুবই সহায়ক।

৪. ২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা ও সামান্য পানি একসাথে মিশিয়ে মুখে ২-৩ মিনিট ঘষুন এবং শুকানোর জন্য কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর মুখ ধুয়ে এর উপর কোনও ময়েশ্চারাইজার ক্রিম বা অলিভ অয়েল লাগান। সপ্তাহে অন্তত দু’দিন এটি ব্যাবহার করুন, ভালো ফল পাবেন।

৫. দিনে দুইবার অ্যালোভেরা(Alovers) জেল মুখে লাগান এবং ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটি শুধুমাত্র ব্রণের দাগই দূর করবে না, বরং আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং টানটান হবে।

৬. একটি লাল টমেটোর কিছু অংশ নিয়ে তার রস নিন। এরপর তা শশার রসের সাথে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩ বার এই প্যাকটি লাগান। ব্রণের দাগ দূর তো হবেই সেই সাথে রোদে পোড়া দাগ দূর হয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

৭. লেবু একটি প্রাকৃতিক ব্লিচ। লেবুর রসের সাথে সামান্য পানি মিশিয়ে একটি তুলার বলের সাহায্যে তা মুখে ৩-৪ মিনিট ঘষুন। যদি সেনসিটিভ স্কিন হয় তাহলে এর সাথে গোলাপ জল(rose water) মিশিয়ে নিবেন। সম্ভব হলে ১ চামচ লেবুর রসের সাথে ২ চামচ ই ক্যাপসুল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন। ভিটামিন ই ক্যাপসুল ত্বকের জন্য খুবই উপকারী।

৮. ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১ টেবিল চামচ মধু, ১ টেবিল চামচ আমন্ড তেল(Amand oil), ২ টেবিল চামচ দুধ একসাথে মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। একটানা ৭-১০ দিন এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে ব্রণ থাকা অবস্থায় দুধ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।-সূত্র: উইমেন্স মেকওভার।

ব্রন খুবই অস্বস্তিকর একটি সমস্যা। কম বেশি সবাই এ সমস্যায় ভোগেন। তবে মুখে ব্রন উঠে যতটা না অস্বস্তিতে ফেলে তার থেকে বেশি অস্বস্থি হয় যখন ব্রণের দাগ মুখে গেড়ে বসে। আর তখনই ভর করে দুশচিন্তার। যার কারনে ব্রনের প্রকপ আরও বেড়ে যায় এবং তার থেকে সৃষ্টি হয় দাগের। তাই ব্রন ও ব্রনের দাগের সমস্যায় যারা ভুগছেন তাদের জন্য রয়েছে ব্রণের দাগ(Acne scars) দূর করার সহজ ৮ টি উপায়। চলুন জেনে নেই ব্রণের দাগ দুর করার উপায়গুলি –ব্রণের দাগ
ব্রণের দাগ দূর করার ৮টি সহজ উপায় জেনে নিন

১. ব্রণের দাগ দূর করতে মধু একটি কার্যকারি উপাদান। রাতে ঘুমানোর আগে মুখ ভালো করে ধুয়ে মধু লাগান। সারারাত তা রেখে সকালে ঘুম থেকে উঠে তা ধুয়ে ফেলুন।

২. মধুর সাথে দারুচিনি গুঁড়া মিশিয়ে শুধুমাত্র দাগের উপর লাগিয়ে ১ ঘণ্টা পর ধুয়ে ফেলুন। চাইলে সারারাতও রাখতে পারেন। দেখবেন কিছুদিনের মধ্যেই আপনার মুখের দাগ দূর হয়ে গোছে।

৩. ২-৩ টি এস্পিরিন ট্যাবলেট এর সাথে ২ চামচ মধু(Honey) ও ২-৩ ফোঁটা পানি মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরি করুন। এস্পিরিন এর স্যালিসাইলিক এসিড ব্রণের দাগ দূরের জন্য খুবই সহায়ক।

৪. ২ টেবিল চামচ বেকিং সোডা ও সামান্য পানি একসাথে মিশিয়ে মুখে ২-৩ মিনিট ঘষুন এবং শুকানোর জন্য কয়েক মিনিট অপেক্ষা করুন। এরপর মুখ ধুয়ে এর উপর কোনও ময়েশ্চারাইজার ক্রিম বা অলিভ অয়েল লাগান। সপ্তাহে অন্তত দু’দিন এটি ব্যাবহার করুন, ভালো ফল পাবেন।

৫. দিনে দুইবার অ্যালোভেরা(Alovers) জেল মুখে লাগান এবং ৩০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এটি শুধুমাত্র ব্রণের দাগই দূর করবে না, বরং আপনার ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে এবং টানটান হবে।

৬. একটি লাল টমেটোর কিছু অংশ নিয়ে তার রস নিন। এরপর তা শশার রসের সাথে মিশিয়ে নিন। এই মিশ্রণটি মুখে লাগান। ১০ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে ৩ বার এই প্যাকটি লাগান। ব্রণের দাগ দূর তো হবেই সেই সাথে রোদে পোড়া দাগ দূর হয়ে ত্বকের উজ্জ্বলতা বৃদ্ধি পাবে।

৭. লেবু একটি প্রাকৃতিক ব্লিচ। লেবুর রসের সাথে সামান্য পানি মিশিয়ে একটি তুলার বলের সাহায্যে তা মুখে ৩-৪ মিনিট ঘষুন। যদি সেনসিটিভ স্কিন হয় তাহলে এর সাথে গোলাপ জল(rose water) মিশিয়ে নিবেন। সম্ভব হলে ১ চামচ লেবুর রসের সাথে ২ চামচ ই ক্যাপসুল মিশিয়ে ত্বকে লাগাতে পারেন। ভিটামিন ই ক্যাপসুল ত্বকের জন্য খুবই উপকারী।

৮. ১ টেবিল চামচ লেবুর রস, ১ টেবিল চামচ মধু, ১ টেবিল চামচ আমন্ড তেল(Amand oil), ২ টেবিল চামচ দুধ একসাথে মিশিয়ে মুখে লাগান। শুকিয়ে গেলে ধুয়ে ফেলুন। একটানা ৭-১০ দিন এই ফেস প্যাকটি ব্যবহার করতে পারেন। তবে ব্রণ থাকা অবস্থায় দুধ ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন।-সূত্র: উইমেন্স মেকওভার।

ত্বকের যত্নে মসুর ডালের ফেসপ্যাক

মসুর ডালে থাকা প্রোটিন এবং অন্যান্য উপকারি উপাদান যখন স্কিনে প্রবেশ করে, তখন স্কিন টোন বদলে যেতে শুরু করে। সেই সঙ্গে ত্বকের উজ্জলতা বাড়তে থাকে।। তাই আজ মসুর ডাল(Lentils) লাগিয়ে কিভাবে নানা ধরনের ফেসপ্যাক বানাতে হয়, সে সম্পর্কে জেনে নিন। মসুর ডাল দিয়ে ফেসপ্যাক বানাতে গেলে প্রথমে ডালটি গুঁড়ো করে পাউডার বানিয়ে নিতে হবে। তারপর সেই পাইডারের সঙ্গে মেলাতে হবে অন্যান্য উপাদান।ত্বকের
ত্বকের যত্নে মসুর ডালের ফেসপ্যাক

১. মসুর ডাল এবং মধু:
আপনার ত্বক কি খুব ড্রাই। সেই সঙ্গে বলি রেখাও দেখা দিতে শুরু করেছে নাকি? তাহলে আর সময় নষ্ট না করে মসুর ডালের পাউডারের সঙ্গে পরিমাণ মতো মধু মিশিয়ে নিয়ে নিয়মিত মুখে লাগাতে শুরু করুন। তাহলেই দেখবেন ধীরে ধীরে বলি রেখা কমতে শুরু করেছে। সেই সঙ্গে ত্বকের (Skin) ড্রাইনেসও কমে যাবে। এক্ষেত্রে প্রথমে ১ চা চামচ মসুর ডাল পাউডারের সঙ্গে ১ চা চামচ মধু মেশাতে হবে। এরপর ভাল করে দুটি উপাদান মিশিয়ে নিয়ে মিশ্রনটি মুখে লাগাতে হবে। ১৫ মিনিট পেস্টটি মুখে ঘষার পর হালকা গরম পানি দিয়ে মুখটা দুয়ে নিলেই দেখুন ত্বকের জেল্লা!

২. মসুর ডাল, বেসন এবং দই:
ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে বেসন এবং দইয়ের কোনোও বিকল্প নেই বললেই চলে। তার ওপর যদি এই মিশ্রনে অল্প করে মসুর ডাল মিশিয়ে দিতে পারেন, তাহলে তে কথাই নেই! কারণ এই তিনটি উপাদান একসঙ্গে মিশিয়ে বানানো পেস্টটি এত মাত্রায় পুষ্টিকর উপাদানে ভরপুর হয় যে ত্বক সুন্দর হয়ে উঠতে সময়ই লাগে না। এই পেস্টটি বানাতে প্রথমে ১ চা চামচ মসুর ডাল পাউডারের সঙ্গে সম পরিমাণ বেসন(Beans) এবং দই মেশাতে হবে। সঙ্গে যোগ করতে পারেন অল্প করে হলুদও। এবার সবকটি উপাদান ভাল করে মিশিয়ে মুখে লাগাতে হবে। কিছু সময় অপেক্ষা করার পর মুখ ধুয়ে নিতে হবে।

৩. মসুর ডাল এবং গাঁদা ফুল:
পরিমাণ মতো মসুর ডাল পাউডারের সঙ্গে সম পরিমাণ গাঁদা ফুল মিশিয়ে ভাল করে বেটে নিয়ে এই পেস্টটি বানাতে হবে। তারপর সেটি কম করে ১৫ মিনিট মুখে লাগিয়ে রাখার পর ধুয়ে ফেলতে হবে। প্রসঙ্গত, ড্রাই স্কিনের সমস্যা দূর করার পাশাপাশি ব্রণর প্রকোপ কমাতে এবং ত্বককে নরম তুলতুলে করে তুলতেও এই ফেস মাস্কটি বিশেষ ভূমিকা পালন করে থাকে।

৪. মসুর ডাল আর দুধ:
ত্বকের উপরিঅংশে জমে থাকা মৃত কোষের স্থর সরিয়ে স্কিনকে প্রাণবন্ত করে তুলতে এই ফেসপ্যাকটির কোনও বিকল্প হয় না বললেই চলে। এক্ষেত্রে সপ্তাহে দুবার পরিমাণ মতো মসুর ডালের পাউডারের সঙ্গে অল্প করে দুধ মিশিয়ে যদি মুখে লাগানো যায়, তাহলে ত্বকের সৌন্দর্য হারিয়ে ফেলা বা স্কিন বুড়িয়ে যাওয়ার মতো দুশ্চিন্তা একেবারে দূরে পালায়।

৫. মুখের চুল পরিষ্কার করে:
অনেক নারীই আছেন যাদের মুখে অযাচিত চুল থাকে। এমন সমস্যা থেকে নিস্তার পেতে ১ চামচ মসুর ডাল পাউডারের সঙ্গে ১ চামচ চালের পাউডার মিশিয়ে একটি পেস্ট বানিয়ে নিতে হবে। সঙ্গে যোগ করতে হবে ১ চামচ দুধ এবং বাদাম তেল(Almond oil)। সবকটি উপাদান মেশানোর পর মিশ্রনটি মুখে লাগিয়ে ৫ মিনিট রেখে দিতে হবে। সময় হয়ে গেলে ধুয়ে ফেলতে হবে।

দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও)

দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও) দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও) দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও)

হারের বলয় থেকে শেষ পর্যন্ত বের হয়েছে বাংলাদেশ দল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়টা এসেছেও দুর্দান্তভাবে, একদম রেকর্ড গড়েই। তবে এর পরও বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রাজি নন আত্মতুষ্টিতে ভুগতে। বরং উন্নতির জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করার তাগিদ জানালেন দলনায়ক।

নিদাহাস ট্রফির লড়াইয়ে স্বাগতিকদের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের জয়ে উজ্জীবিত বাংলাদেশ দল। যদিও জেতা ম্যাচে বোলারদের অতিরিক্ত রান দেওয়া কিংবা বৈচিত্র্যপূর্ণ বোলিংয়ের অভাবটা বেশ চোখে পড়েছে । এমন আরো কিছু জায়গায় উন্নতির প্রয়োজন বলে মনে করছেন মাহমুদউল্লাহ।

আজ সোমবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের ভেন্যু প্রেমাদাসাতে অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ দল। প্রস্তুতি সেরে দলের প্রতিনিধি হিসেবে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। আত্মতুষ্টিতে গা না ভাসিয়ে দলপতি শুনিয়েছেন সমস্যার সমাধানে মনোযোগী হওয়ার কথা।

মাহমুদউল্লাহর মতে, ‘আমরা ভালো একটা জয় পেয়েছি। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, অনেক কিছু করে ফেলেছি। হ্যাঁ, ওই জয়টা আমাদের আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু এখনো উন্নতির অনেক জায়গা আছে। ক্রিকেট এমন একটি খেলা যেখানে প্রতি ম্যাচ থেকেই শেখার থাকে। যে জায়গাগুলোতে আমাদের সমস্যা আছে সেটা নিয়ে আলোচনা করছি।’

আত্মবিশ্বাসটা থাকা ভালো। আর সে আত্মবিশ্বাসকে কাজে লাগিয়ে যদি কাজ করা যায় সমস্যাগুলো নিয়েও, তবে সেটা দ্বিগুণ ভালো। ভারতের বিপক্ষে ফিরতি লড়াইয়ের আগে ফাঁক-ফোকরগুলো সারিয়ে নেওয়া গেলে মাঠের লড়াইয়েও একটু এগিয়ে থাকবেই টাইগাররা। সেই এগিয়ে থাকার পরীক্ষাতেই প্রেমাদাসায় আগামীকাল বাংলাদেশ মাঠে নামবে ভারতের বিপক্ষে।

শ্রীলঙ্কায় আবহাওয়াটা বর্তমানে একটু খারাপই বলা চলে। হুটহাট করে বৃষ্টি নামছে। আর সেই প্রভাব পড়ছে নিদাহাস ট্রফির ম্যাচগুলোতেও। বৃষ্টি বাগড়া দিচ্ছে বাংলাদেশের অনুশীলনেও। আর এ রকম আবহাওয়ায় টসটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এমনটা মানছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

না মানার কারণ অবশ্য খুব বেশি নেই। চলতি সিরিজের চার ম্যাচেই টস জয়ী দলটা জিতেছে ম্যাচেও। শুধু টস জয় নয়, ম্যাচ জেতা দল ব্যাটও করেছে দ্বিতীয় ইনিংসে। আর সব মিলিয়ে তাই টসটাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন মাহমুদউল্লাহ।

প্রেমাদাসায় ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন দলপতি নিজেই। সেখানেই বলেছেন টস নিয়ে নিজের ভাবনার কথা, ‘এমন আবহাওয়ায় টস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম দিকে বোলাররা একটু সুবিধা পান। কিন্তু পরের দিকে ব্যাট করা খুব সহজ হয়ে যায়। এমনিতেই এটা ব্যাটিং উইকেট। সাধারণত এখানে যারা পরে ব্যাট করেছে তারাই জিতেছে।’

আজকেও বৃষ্টির বাধায় বিলম্বিত হয়েছে বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। সকাল থেকেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ঝরছিল কলম্বোতে। প্রেমাদাসায় তাই ১০টা থেকে অনুশীলন শুরু করার কথা থাকলেও তিন ঘণ্টা বিলম্বে দুপুর ১টা থেকে প্রস্তুতিতে নেমেছিল বাংলাদেশ।

আগের দিন মাঠ নিয়ে সমস্যা, পরের দিন বৃষ্টির বাগড়া। অনুশীলনটা ঠিক মাহমুদউল্লাহর মন মতো হয়নি। খানিকটা হতাশা নিয়েই দলপতি বলেছেন, ‘গতকাল প্র্যাকটিস হয়নি, আজও একই অবস্থা। প্র্যাকটিস হলে অবশ্যই ভালো হতো। কিন্তু কিছু তো করার নেই। দেখি আবহাওয়া ভালো হয় কি না। ভালো হলে আজ পরের দিকে একটা সেশন প্র্যাকটিস করার চেষ্টা করব।’

প্রস্তুতির ঘাটতি আর আবহাওয়ার বিরুদ্ধাচরণ, এই দুই সমস্যা নিয়েই আগামীকাল ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কলম্বোর প্রেমাদাসায় শুরু হবে নিদাহাস ট্রফির চতুর্থ ম্যাচটি।

দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও) দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও) দেখুন লাইভে এসে মেয়েটি কিভাবে সব দেখিয়ে দিলো! ছোটরা দেখবেন না প্লিজ (ভিডিও)

হারের বলয় থেকে শেষ পর্যন্ত বের হয়েছে বাংলাদেশ দল। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে জয়টা এসেছেও দুর্দান্তভাবে, একদম রেকর্ড গড়েই। তবে এর পরও বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রাজি নন আত্মতুষ্টিতে ভুগতে। বরং উন্নতির জায়গাগুলো নিয়ে কাজ করার তাগিদ জানালেন দলনায়ক।

নিদাহাস ট্রফির লড়াইয়ে স্বাগতিকদের বিপক্ষে পাঁচ উইকেটের জয়ে উজ্জীবিত বাংলাদেশ দল। যদিও জেতা ম্যাচে বোলারদের অতিরিক্ত রান দেওয়া কিংবা বৈচিত্র্যপূর্ণ বোলিংয়ের অভাবটা বেশ চোখে পড়েছে । এমন আরো কিছু জায়গায় উন্নতির প্রয়োজন বলে মনে করছেন মাহমুদউল্লাহ।

আজ সোমবার ভারতের বিপক্ষে ম্যাচের ভেন্যু প্রেমাদাসাতে অনুশীলন করেছে বাংলাদেশ দল। প্রস্তুতি সেরে দলের প্রতিনিধি হিসেবে সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। আত্মতুষ্টিতে গা না ভাসিয়ে দলপতি শুনিয়েছেন সমস্যার সমাধানে মনোযোগী হওয়ার কথা।

মাহমুদউল্লাহর মতে, ‘আমরা ভালো একটা জয় পেয়েছি। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, অনেক কিছু করে ফেলেছি। হ্যাঁ, ওই জয়টা আমাদের আত্মবিশ্বাস দিয়েছে। কিন্তু এখনো উন্নতির অনেক জায়গা আছে। ক্রিকেট এমন একটি খেলা যেখানে প্রতি ম্যাচ থেকেই শেখার থাকে। যে জায়গাগুলোতে আমাদের সমস্যা আছে সেটা নিয়ে আলোচনা করছি।’

আত্মবিশ্বাসটা থাকা ভালো। আর সে আত্মবিশ্বাসকে কাজে লাগিয়ে যদি কাজ করা যায় সমস্যাগুলো নিয়েও, তবে সেটা দ্বিগুণ ভালো। ভারতের বিপক্ষে ফিরতি লড়াইয়ের আগে ফাঁক-ফোকরগুলো সারিয়ে নেওয়া গেলে মাঠের লড়াইয়েও একটু এগিয়ে থাকবেই টাইগাররা। সেই এগিয়ে থাকার পরীক্ষাতেই প্রেমাদাসায় আগামীকাল বাংলাদেশ মাঠে নামবে ভারতের বিপক্ষে।

শ্রীলঙ্কায় আবহাওয়াটা বর্তমানে একটু খারাপই বলা চলে। হুটহাট করে বৃষ্টি নামছে। আর সেই প্রভাব পড়ছে নিদাহাস ট্রফির ম্যাচগুলোতেও। বৃষ্টি বাগড়া দিচ্ছে বাংলাদেশের অনুশীলনেও। আর এ রকম আবহাওয়ায় টসটা ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ এমনটা মানছেন বাংলাদেশ অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ।

না মানার কারণ অবশ্য খুব বেশি নেই। চলতি সিরিজের চার ম্যাচেই টস জয়ী দলটা জিতেছে ম্যাচেও। শুধু টস জয় নয়, ম্যাচ জেতা দল ব্যাটও করেছে দ্বিতীয় ইনিংসে। আর সব মিলিয়ে তাই টসটাকে গুরুত্ব দিচ্ছেন মাহমুদউল্লাহ।

প্রেমাদাসায় ম্যাচ পূর্ববর্তী সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন দলপতি নিজেই। সেখানেই বলেছেন টস নিয়ে নিজের ভাবনার কথা, ‘এমন আবহাওয়ায় টস অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। প্রথম দিকে বোলাররা একটু সুবিধা পান। কিন্তু পরের দিকে ব্যাট করা খুব সহজ হয়ে যায়। এমনিতেই এটা ব্যাটিং উইকেট। সাধারণত এখানে যারা পরে ব্যাট করেছে তারাই জিতেছে।’

আজকেও বৃষ্টির বাধায় বিলম্বিত হয়েছে বাংলাদেশ দলের অনুশীলন। সকাল থেকেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি ঝরছিল কলম্বোতে। প্রেমাদাসায় তাই ১০টা থেকে অনুশীলন শুরু করার কথা থাকলেও তিন ঘণ্টা বিলম্বে দুপুর ১টা থেকে প্রস্তুতিতে নেমেছিল বাংলাদেশ।

আগের দিন মাঠ নিয়ে সমস্যা, পরের দিন বৃষ্টির বাগড়া। অনুশীলনটা ঠিক মাহমুদউল্লাহর মন মতো হয়নি। খানিকটা হতাশা নিয়েই দলপতি বলেছেন, ‘গতকাল প্র্যাকটিস হয়নি, আজও একই অবস্থা। প্র্যাকটিস হলে অবশ্যই ভালো হতো। কিন্তু কিছু তো করার নেই। দেখি আবহাওয়া ভালো হয় কি না। ভালো হলে আজ পরের দিকে একটা সেশন প্র্যাকটিস করার চেষ্টা করব।’

প্রস্তুতির ঘাটতি আর আবহাওয়ার বিরুদ্ধাচরণ, এই দুই সমস্যা নিয়েই আগামীকাল ভারতের বিপক্ষে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় কলম্বোর প্রেমাদাসায় শুরু হবে নিদাহাস ট্রফির চতুর্থ ম্যাচটি।

বয়স লুকানোর ১৭ টি কার্যকরী টিপস

সকলেই চায় অন্যের কাছে নিজেকে একটু স্মার্ট ভাবে তুলে ধরতে। চায় তার বয়সটাকে একটু কমাতে। কিন্তু সেটাতো আর সম্ভব নয়। তার পরও চেহারার মসৃনতা ধরে রাখতে আপনাদের সামনে কিছু টিপষ তুলে ধরা হল। এ গুলো অনুসরন করলে আসাকরি ভালো ফল পাবেন।

বয়স লুকানোর ১৭ টি কার্যকরী টিপস
বয়স লুকানোর ১৭ টি কার্যকরী টিপস

১. প্রতিদিন কম পক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

২. সবুজ শাক-সবজি জাতিয় খাবার বেশি করে খাবেন।

৩. স্বাস্হ্যের ক্ষতি হয় এমন খাবার থেকে দূরে থাকুন।

৪. অনিয়মিত কোন কিছুই ভালোনা। সময় মত খাওয়া দাওয়া ও নিয়মিত ঘুম পড়ুন।

৫. খাটি মধু সংগ্রহ করুন এবং রাত্রে ঘুমানোর আগে একটু করে মধু খাবেন। আর পারলে মুখে মেখে একটু পরে ধুয়ে
ফেলুন।

৬. প্রতিদিন নিয়মিত ব্যয়াম করুন।

৭. সব কাজ আত্মবিশ্বাসের সাথে করুন।

৮. মনকে সব সময় আনন্দে রাখার চেষ্টা করুন। সময় পেলে নাচ গান আবৃতি করুন।

৯. প্রতিদিন নাপারলেও মাঝে মাঝে জীবন সঙ্গীরসাথেিআপনাদের পছন্দের স্হান থেকে ঘুরে আসুন।

১০. প্রকৃতিক সৈন্দর্যকে ভালোবাসুন যেমন আকাশ-বাতাস পাহাড়-পর্বত নদ-নদী ইত্যাদি।

১১. আতিরিক্ত প্রসাধনি ব্যবহার থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

১২. নিজেকে ধৈর্যশীল করার চেষ্টা করুন।

১৩. সব সময় হাসি খুসি থাকার চেষ্টা করুন।

১৪. মাঝে মাঝে প্ররিশ্রম করুন।

১৫. খওয়ার পর পর বিছানায় গা এলিয়ে দিবেন না। কম পক্ষে খাওয়র ৩০ মিনিট পর শুবেন।

১৬. কারো সাথে ছলনা করবেন না। বিশেষ করে আপনার ভালোবাসায় ছলনা করবেন না।

১৭. প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে শিরদাঁড়া সোজা রেখে দাঁড়িয়ে থাকার অভ্যাস করুন।

আপনার জন্য আরো কিছু পোষ্ট:
চুলে শ্যাম্পু করার কিছু টিপস।না দেখলে লস করবেন

কীভাবে মাত্র দুই সপ্তাহে গায়ের রঙ ফর্সা করবেন?
আপনার স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোন সমস্যার জন্য এখানে কমেন্ট করে জানান।তাছাড়া অপনারা কোন ধরণের পোষ্ট চান তাও জানাতে ভুলবেন না।ধন্যবাদ
Share this:

সকলেই চায় অন্যের কাছে নিজেকে একটু স্মার্ট ভাবে তুলে ধরতে। চায় তার বয়সটাকে একটু কমাতে। কিন্তু সেটাতো আর সম্ভব নয়। তার পরও চেহারার মসৃনতা ধরে রাখতে আপনাদের সামনে কিছু টিপষ তুলে ধরা হল। এ গুলো অনুসরন করলে আসাকরি ভালো ফল পাবেন।

বয়স লুকানোর ১৭ টি কার্যকরী টিপস
বয়স লুকানোর ১৭ টি কার্যকরী টিপস

১. প্রতিদিন কম পক্ষে ৩-৪ লিটার পানি পান করুন।

২. সবুজ শাক-সবজি জাতিয় খাবার বেশি করে খাবেন।

৩. স্বাস্হ্যের ক্ষতি হয় এমন খাবার থেকে দূরে থাকুন।

৪. অনিয়মিত কোন কিছুই ভালোনা। সময় মত খাওয়া দাওয়া ও নিয়মিত ঘুম পড়ুন।

৫. খাটি মধু সংগ্রহ করুন এবং রাত্রে ঘুমানোর আগে একটু করে মধু খাবেন। আর পারলে মুখে মেখে একটু পরে ধুয়ে
ফেলুন।

৬. প্রতিদিন নিয়মিত ব্যয়াম করুন।

৭. সব কাজ আত্মবিশ্বাসের সাথে করুন।

৮. মনকে সব সময় আনন্দে রাখার চেষ্টা করুন। সময় পেলে নাচ গান আবৃতি করুন।

৯. প্রতিদিন নাপারলেও মাঝে মাঝে জীবন সঙ্গীরসাথেিআপনাদের পছন্দের স্হান থেকে ঘুরে আসুন।

১০. প্রকৃতিক সৈন্দর্যকে ভালোবাসুন যেমন আকাশ-বাতাস পাহাড়-পর্বত নদ-নদী ইত্যাদি।

১১. আতিরিক্ত প্রসাধনি ব্যবহার থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।

১২. নিজেকে ধৈর্যশীল করার চেষ্টা করুন।

১৩. সব সময় হাসি খুসি থাকার চেষ্টা করুন।

১৪. মাঝে মাঝে প্ররিশ্রম করুন।

১৫. খওয়ার পর পর বিছানায় গা এলিয়ে দিবেন না। কম পক্ষে খাওয়র ৩০ মিনিট পর শুবেন।

১৬. কারো সাথে ছলনা করবেন না। বিশেষ করে আপনার ভালোবাসায় ছলনা করবেন না।

১৭. প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে শিরদাঁড়া সোজা রেখে দাঁড়িয়ে থাকার অভ্যাস করুন।

আপনার জন্য আরো কিছু পোষ্ট:
চুলে শ্যাম্পু করার কিছু টিপস।না দেখলে লস করবেন

কীভাবে মাত্র দুই সপ্তাহে গায়ের রঙ ফর্সা করবেন?
আপনার স্বাস্থ্য বিষয়ক যে কোন সমস্যার জন্য এখানে কমেন্ট করে জানান।তাছাড়া অপনারা কোন ধরণের পোষ্ট চান তাও জানাতে ভুলবেন না।ধন্যবাদ
Share this:

নারীর গোপনাঙ্গে মুখ দেওয়া নিয়ে ইসলাম যা বলে জেনে নিন

মেয়েদের বলতে গেলে প্রায় পুরো দেহটিই স্পর্শকাতর। তার মাঝেও কিছু কিছু স্থান রয়েছে যেগুলোতে আদর পেলে তারা চূড়ান্ত উত্তেজনার দিকে তড়িৎগতিতে অগ্রসর হয়। তবে ছেলেদের দেহেরও শুধুমাত্র লিঙ্গই একমাত্র যৌন অঙ্গ নয়। আজকালকের দিনে এমনকি আমাদের দেশের ১০-১২ বছরের ছেলে-মেয়েরা পর্যন্ত জেনে যাচ্ছে কিভাবে সেক্স করতে হয়। তাই বলা যায় বিয়ে তো বহুদূরের কথা, এখনকার ছেলেমেয়েদের গার্লফ্রেন্ড-বয়ফ্রেন্ড হওয়ার আগেই তারা এ বিষয়ে বহু কিছু জানে। কিন্ত তাদের এ জানাই কি যথেষ্ট? ছোটকালে বাচ্চারা একটা খেলা খেলে, এটাকে ওরা বলে ডক্টর ডক্টর খেলা। বিশেষ করে একটি বাচ্চা ছেলে ও মেয়ে খেলার সাথী থাকলেই তারা লুকিয়ে এই খেলা খেলে থাকে। এতে দুজনেই কাপড়-চোপড় খুলে নিয়ে একজন-আরেকজনের যৌন-অঙ্গগুলো নিয়ে খেলা করে, তাদের মাঝে পার্থক্য আবিস্কার করে। সবার অবশ্য এ অভিজ্ঞতা হয়না। তবে সে যাই হোক মোটকথা আমাদের সঙ্গী-সঙ্গিনীকে পরিপূর্ন যৌনসুখ দিতে হলে তাদের যৌনস্পর্শকাতর অঙ্গগুলো সম্পর্কে আমাদের স্পষ্ট ধারনা থাকা দরকার। অনেকে বলতে পারেন কি দরকার? নিজে মজা পেলেই হল। তাদের জন্য বলছি আমার এ প্রয়াস ভালোবাসার অনুভুতিবিহীন যৌন লালসাময় সেক্সের জন্য নয়। যে তার সঙ্গী বা সঙ্গিনীকে ভালবাসে সে অবশ্যই চাবে তাকে আনন্দ দিতে এবং এতে সে নিজেও আনন্দ লাভ করে।
মূলত ছেলে ও মেয়ের যৌনকাতর অঙ্গগুলোর মধ্যে অনেকগুলোই Common রয়েছে এবং তাদের ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ছেলে বা মেয়ে ভেদে প্রায় একই হলেও কয়েকটি ক্ষেত্রে কিছুটা ভিন্ন। এসকল কিছু উল্লেখপূর্বক এখানে আমি তাদের এ অঙ্গগুলোর বিবরন ছাড়াও কি কি উপায়ে সেগুলোকে উত্তেজিত করে তোলা যেতে পারে তার উপরেও আলোকপাত করেছি। আশা করি সবার ভালো লাগবে।

গোপনাঙ্গে
নারীর গোপনাঙ্গে মুখ দেওয়া

মেয়েদের ক্ষেত্রেঃ মেয়েদের দেহের বেশ কয়েকটি যৌনস্পর্শকাতর অংশ আছে যেগুলো সরাসরি তাদের যৌনত্তেজনার সূচনা ঘটায়। সাধারন অবস্থা থেকে এ অংশগুলোর মাধ্যমেই একটি ছেলে তার মাঝে যৌনাভুতি জাগিয়ে তুলতে পারে। আর কিছু অংশ আছে যেগুলো মেয়েটির যৌনত্তেজনার সূচনা ঘটার পরই উত্তেজিত হওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে উঠে, অথচ সাধারন অবস্থায় এগুলো উত্তেজিত করার চেষ্টা করলে মেয়েটি এমনকি ব্যাথা বা অসস্তিও বোধ করতে পারে। মেয়েদের সবচাইতে যৌনস্পর্শকাতর অংশটিও এই দ্বিতীয় শ্রেনীর অন্তর্ভুক্ত।

গোপনাঙ্গে মুখ দেয়া নিয়ে ইসলামিক বিধান কি? ইসলাম এটিকে হারাম বলেছেন কারন নাপাক জায়গায় মুখ দিলে মানুযের মুখ আপবিএ হয়। যা ইসলামে সম্পৃণ নিষিদ্ধ।

প্রথমতঃ
শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে করা স্বামী-স্ত্রীর গোপনীয়তার ব্যাপারে মহান আল্লাহ পাক কোন হস্তক্ষেপ করেন না। তারা নিজেদের শারীরিক সুখের ব্যাপারে কি করবে না করবে সেটা তাদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার।
তবে অস্বাস্থ্যকর যৌনকর্ম ইসলামে নিষিদ্ধ। যেমন পায়ুপথে যৌনমিলনে বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে ঝুঁকির সম্ভাবনা পাওয়া গেছে, ইসলামে অনেক আগে থেকেই নিজের স্ত্রীর সাথেও পায়ুপথে যৌন মিলনে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।
যৌনাঙ্গে মুখ দেওয়া হারাম না হালাল সেটা নিয়ে অনেক মতপার্থক্য আছে। একদল মনে করেন, যে মুখ দিয়ে আল্লাহ ও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পবিত্র নাম নেওয়া হয় সে মুখ অন্য কোন অপবিত্র স্থানে দেওয়া ঠিক না। আবার,
আরেক দল মনে করে যৌনমিলনে নিজের জীবনসঙ্গীকে চরম সুখ দেওয়া ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে প্রত্যেক নর-নারীর কর্তব্য। এমতাবস্থায় যৌনাঙ্গে মুখ দিয়ে যদি যৌনসুখ বাড়ানো সম্ভব হয় তবে তা নিশ্চয়ই দোষের কিছু হবে না। জানুন নারীর গোপনাঙ্গের দুর্গন্ধ দূর করতে যা করবেন ।
এছাড়া যৌন মিলন করলে শুধু মুখ না, মানুষের শরীরের প্রত্যেকটা অঙ্গই অপবিত্র হয়ে যায়। ফরজ গোসলের মাধ্যমে সারা দেহের প্রতিটি অঙ্গের পবিত্রতা ফিরে আসে। তবে চর্মরোগজনিত কোন সমস্যা থাকলে যৌনাঙ্গে মুখ দেওয়া থেকে বিরত থাকা-ই ভাল।

দ্বিতীয়ত্বঃ
যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটি একটি পশুভিক্তিক আচরণ। যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটা সভ্য মানুষের আচরণ হতে পারেনা। পুশুদের হাত নেই বলেই তার সঙ্গীনিকে মুখ দ্বারা উত্তেজিত করে। কিন্তু আপনার তো হাত আছে। আপনার হাত থাকতে কেনো আপনি (পুরুষ ও নারী) কেনো যৌনাঙ্গতে মুখ লাগিয়ে আপনার সঙ্গীনিকে উত্তেজিত করবেন?? জানা মতে পুশুরাও তো যৌনাঙ্গতে মুখ লাগায় না। তবে আপনি কেনো সৃষ্টির সেরা হয়ে যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাবেন? ইসলামের চোখে হস্তমৈথুনের খারাপ দিক ।
এটা তো প্রসাবের রাস্তা। আপনি কি যে পাত্রে প্রসাব করেন সে পাত্রে কি খাদ্য রেখে খাবেন? আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন আমার কোনো আপত্তি নেই। আমার এই কথার বিপরীতে যদি আপনি বলেন এটা (যৌনাঙ্গ) তো ধোয়া ও পরিস্কার থাকে। জবাবে আমি আপনাকে বলবো আপনি কারো বাসায় মেহমান হয়ে গেলেন। আপনার সামনে সে বাসার মালিকের ছোট্ট ছেলে ফল রাখার পাত্রেতে প্রসাব করে দিল এবং বাসার মালিক তা ধুয়ে সে পাত্রে আপনাকে ফল বা খাবার আপনি কি সে খাবার খাবেন? অবশ্য আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন। আপনি তাকান তো আপনার নিজের দিকে। আপনি যখন আপনার মায়ের গর্ভে ছিলেন, তখন মহান আল্লাহ আপনার মায়ের মাসিকের রক্ত বন্ধ করে সে রক্ত দিয়ে আপনার প্রাণ বাঁচিয়েছেন। সে মাসিকের রক্ত কি আপনাকে মুখ দিয়ে পান করিয়েছেন না কি নাড়ী দিয়ে। মহান আল্লাহ মাসিকের রক্ত নাড়ী দিয়ে আপনার দেহ প্রবেশ করিয়ে আপনার প্রাণ রক্ষা করেছেন। কেনো করেছেন? উত্তর হচ্ছে এই রক্ত যদি আপনার মুখ দিয়ে আপনার দেহে প্রবেশ করাতেন তাহলে আপনার মুখ টা নাপাক হয়ে যেত। তা হলে আপনি দুনিয়াতে এসে অপবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম নিতেন। আপনি যাতে পবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম জপতে পারেন সে জন্য মহান আল্লাহ এই ব্যবস্থার মাধ্যমে মায়ের গর্ভে আপনার প্রাণ বাঁচিয়েছেন।

তৃতীয়তঃ
যৌনাঙ্গতে মুখ লাগালে যৌনাঙ্গতে লেগে থাকা জীবাণু আপনার দেহে প্রবেশ করবে। তাতে আপনি অসুস্থ হওয়ার সম্ভবনা আছে। তাছাড়া আপনি যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাবেন সে যদি যৌন রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে তখন আপনি কি করবেন?
এখন আপনি যদি প্রশ্ন করেন ডাক্তারেরা তো বলে যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাতে। উত্তরে আমি বলতে চাই, ডাক্তারেরাতো বলে পানি ফুটালে পানিতে থাকা জীবাণুরা মরে যায়। কিন্তু পানিতে থাকা জীবাণুরা মরে কি উড়ে যায় নাকি সে জীবাণু পানিতেই থেকে যায়? এখন আপনি যদি সে পানি খান তাহলে মরা জীবাণুর সাথেই সে পানি খাচ্ছেন।

অন্যরা যা খুঁজছেঃ মেয়েদের গোপন অঙ্গ; গোপন অঙ্গ; মুখের দুর্গন্ধ দূর করার প্রাকৃতিক প্রতিকার; কুঁচকির কালো দাগ দূর করার উপাই; মুখের দুরগন্ধ দুর করার উপায়; মুখে গনধ; মুখের দূরগন্ধ দূর করার; মুখের দূর্গন্ধ দুর করার উপায়; মুখের দূর্গন্ধ দূর করার উপায়; ভোদার দূর্গন্ধ কী করতে পারি; মেয়েদের মুখে বাজে গন্ধ; স্তন বড় করার কৌশল; মেয়েদের বোগলের দুরগন্ধ থেকে সমাধানের উপায়; সরিলের দুর গন্ধ দুর করার টিপশ; লিঙ্গের দূর গন্ধ দূর করার উপায় ছেলেদের জন্য; লিঙ্গের গন্ধ দূর করব; লিঙ্গের আশেপাশের দূর্গন্ধ কিভাবে দূর করা যায়; লিংগের গন্ধ; যৌনাঙ্গের দুর্গন্ধ দূর করার উপায়; মেয়েদের লজ্জাস্থানের গন্ধ দূর করার উপায়; মেয়েদের মুখের গন্দ দুর করার উপায়; ভোদার দাগ; ফ্রিজের দুর্গন্ধ দুর করার উপায়; প্রাকৃতিক উপায়ে মেয়েদের যোনির বীর্যের টক দূর করার নিয়ম; গায়ের দূরগন্ধ দূর করার পারফিউম; খুশকি দুর করার উপায়; কুচকির দুর্গন্ধ দুর করার উপায়; কুচকিতে চম রোগ এর দাগ দুর করার উপায়; কুচকিতে কাল দাগ ও গন্ধ দূর করার উপায়; proseste canser দুর করে; breat এর দাগ দুর করার উপায়; গোপন অঙ্গের চুলকানি প্রতির গায়ের দূর্গন্ধ; গোপন অঙ্গের গন্ধ দূর করার উপায়; পুরুষাঙ্গের দূর্গন্ধ তসলিমা; পুরুষাঙ্গের দূর্গন্ধ; পুরুষাঙ্গের দূরগন্ধ; জরায়ুর গনধ দুর করার উপায়; ছেলেদের বগলের দুর্গন্ধ করার উপায়; ছেলেদের গোপন জায়গা সাদা করার উপায় কী; ছাড়পোকা দূর করার উপায়; গোপন অঙ্গের দূরগন্ধ দূর করার উপায়; গায়ের গন্ধ দুর করার উপায়;

মেয়েদের বলতে গেলে প্রায় পুরো দেহটিই স্পর্শকাতর। তার মাঝেও কিছু কিছু স্থান রয়েছে যেগুলোতে আদর পেলে তারা চূড়ান্ত উত্তেজনার দিকে তড়িৎগতিতে অগ্রসর হয়। তবে ছেলেদের দেহেরও শুধুমাত্র লিঙ্গই একমাত্র যৌন অঙ্গ নয়। আজকালকের দিনে এমনকি আমাদের দেশের ১০-১২ বছরের ছেলে-মেয়েরা পর্যন্ত জেনে যাচ্ছে কিভাবে সেক্স করতে হয়। তাই বলা যায় বিয়ে তো বহুদূরের কথা, এখনকার ছেলেমেয়েদের গার্লফ্রেন্ড-বয়ফ্রেন্ড হওয়ার আগেই তারা এ বিষয়ে বহু কিছু জানে। কিন্ত তাদের এ জানাই কি যথেষ্ট? ছোটকালে বাচ্চারা একটা খেলা খেলে, এটাকে ওরা বলে ডক্টর ডক্টর খেলা। বিশেষ করে একটি বাচ্চা ছেলে ও মেয়ে খেলার সাথী থাকলেই তারা লুকিয়ে এই খেলা খেলে থাকে। এতে দুজনেই কাপড়-চোপড় খুলে নিয়ে একজন-আরেকজনের যৌন-অঙ্গগুলো নিয়ে খেলা করে, তাদের মাঝে পার্থক্য আবিস্কার করে। সবার অবশ্য এ অভিজ্ঞতা হয়না। তবে সে যাই হোক মোটকথা আমাদের সঙ্গী-সঙ্গিনীকে পরিপূর্ন যৌনসুখ দিতে হলে তাদের যৌনস্পর্শকাতর অঙ্গগুলো সম্পর্কে আমাদের স্পষ্ট ধারনা থাকা দরকার। অনেকে বলতে পারেন কি দরকার? নিজে মজা পেলেই হল। তাদের জন্য বলছি আমার এ প্রয়াস ভালোবাসার অনুভুতিবিহীন যৌন লালসাময় সেক্সের জন্য নয়। যে তার সঙ্গী বা সঙ্গিনীকে ভালবাসে সে অবশ্যই চাবে তাকে আনন্দ দিতে এবং এতে সে নিজেও আনন্দ লাভ করে।
মূলত ছেলে ও মেয়ের যৌনকাতর অঙ্গগুলোর মধ্যে অনেকগুলোই Common রয়েছে এবং তাদের ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া ছেলে বা মেয়ে ভেদে প্রায় একই হলেও কয়েকটি ক্ষেত্রে কিছুটা ভিন্ন। এসকল কিছু উল্লেখপূর্বক এখানে আমি তাদের এ অঙ্গগুলোর বিবরন ছাড়াও কি কি উপায়ে সেগুলোকে উত্তেজিত করে তোলা যেতে পারে তার উপরেও আলোকপাত করেছি। আশা করি সবার ভালো লাগবে।

গোপনাঙ্গে
নারীর গোপনাঙ্গে মুখ দেওয়া

মেয়েদের ক্ষেত্রেঃ মেয়েদের দেহের বেশ কয়েকটি যৌনস্পর্শকাতর অংশ আছে যেগুলো সরাসরি তাদের যৌনত্তেজনার সূচনা ঘটায়। সাধারন অবস্থা থেকে এ অংশগুলোর মাধ্যমেই একটি ছেলে তার মাঝে যৌনাভুতি জাগিয়ে তুলতে পারে। আর কিছু অংশ আছে যেগুলো মেয়েটির যৌনত্তেজনার সূচনা ঘটার পরই উত্তেজিত হওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে উঠে, অথচ সাধারন অবস্থায় এগুলো উত্তেজিত করার চেষ্টা করলে মেয়েটি এমনকি ব্যাথা বা অসস্তিও বোধ করতে পারে। মেয়েদের সবচাইতে যৌনস্পর্শকাতর অংশটিও এই দ্বিতীয় শ্রেনীর অন্তর্ভুক্ত।

গোপনাঙ্গে মুখ দেয়া নিয়ে ইসলামিক বিধান কি? ইসলাম এটিকে হারাম বলেছেন কারন নাপাক জায়গায় মুখ দিলে মানুযের মুখ আপবিএ হয়। যা ইসলামে সম্পৃণ নিষিদ্ধ।

প্রথমতঃ
শরীয়ত মোতাবেক বিয়ে করা স্বামী-স্ত্রীর গোপনীয়তার ব্যাপারে মহান আল্লাহ পাক কোন হস্তক্ষেপ করেন না। তারা নিজেদের শারীরিক সুখের ব্যাপারে কি করবে না করবে সেটা তাদের একান্ত ব্যক্তিগত ব্যাপার।
তবে অস্বাস্থ্যকর যৌনকর্ম ইসলামে নিষিদ্ধ। যেমন পায়ুপথে যৌনমিলনে বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিকোণ থেকে ঝুঁকির সম্ভাবনা পাওয়া গেছে, ইসলামে অনেক আগে থেকেই নিজের স্ত্রীর সাথেও পায়ুপথে যৌন মিলনে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে।
যৌনাঙ্গে মুখ দেওয়া হারাম না হালাল সেটা নিয়ে অনেক মতপার্থক্য আছে। একদল মনে করেন, যে মুখ দিয়ে আল্লাহ ও রাসূলুল্লাহ (সাঃ) এর পবিত্র নাম নেওয়া হয় সে মুখ অন্য কোন অপবিত্র স্থানে দেওয়া ঠিক না। আবার,
আরেক দল মনে করে যৌনমিলনে নিজের জীবনসঙ্গীকে চরম সুখ দেওয়া ইসলামের দৃষ্টিকোণ থেকে প্রত্যেক নর-নারীর কর্তব্য। এমতাবস্থায় যৌনাঙ্গে মুখ দিয়ে যদি যৌনসুখ বাড়ানো সম্ভব হয় তবে তা নিশ্চয়ই দোষের কিছু হবে না। জানুন নারীর গোপনাঙ্গের দুর্গন্ধ দূর করতে যা করবেন ।
এছাড়া যৌন মিলন করলে শুধু মুখ না, মানুষের শরীরের প্রত্যেকটা অঙ্গই অপবিত্র হয়ে যায়। ফরজ গোসলের মাধ্যমে সারা দেহের প্রতিটি অঙ্গের পবিত্রতা ফিরে আসে। তবে চর্মরোগজনিত কোন সমস্যা থাকলে যৌনাঙ্গে মুখ দেওয়া থেকে বিরত থাকা-ই ভাল।

দ্বিতীয়ত্বঃ
যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটি একটি পশুভিক্তিক আচরণ। যৌনাঙ্গতে মুখ লাগানো এটা সভ্য মানুষের আচরণ হতে পারেনা। পুশুদের হাত নেই বলেই তার সঙ্গীনিকে মুখ দ্বারা উত্তেজিত করে। কিন্তু আপনার তো হাত আছে। আপনার হাত থাকতে কেনো আপনি (পুরুষ ও নারী) কেনো যৌনাঙ্গতে মুখ লাগিয়ে আপনার সঙ্গীনিকে উত্তেজিত করবেন?? জানা মতে পুশুরাও তো যৌনাঙ্গতে মুখ লাগায় না। তবে আপনি কেনো সৃষ্টির সেরা হয়ে যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাবেন? ইসলামের চোখে হস্তমৈথুনের খারাপ দিক ।
এটা তো প্রসাবের রাস্তা। আপনি কি যে পাত্রে প্রসাব করেন সে পাত্রে কি খাদ্য রেখে খাবেন? আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন আমার কোনো আপত্তি নেই। আমার এই কথার বিপরীতে যদি আপনি বলেন এটা (যৌনাঙ্গ) তো ধোয়া ও পরিস্কার থাকে। জবাবে আমি আপনাকে বলবো আপনি কারো বাসায় মেহমান হয়ে গেলেন। আপনার সামনে সে বাসার মালিকের ছোট্ট ছেলে ফল রাখার পাত্রেতে প্রসাব করে দিল এবং বাসার মালিক তা ধুয়ে সে পাত্রে আপনাকে ফল বা খাবার আপনি কি সে খাবার খাবেন? অবশ্য আপনার রুচিতে হলে খেতে পারেন। আপনি তাকান তো আপনার নিজের দিকে। আপনি যখন আপনার মায়ের গর্ভে ছিলেন, তখন মহান আল্লাহ আপনার মায়ের মাসিকের রক্ত বন্ধ করে সে রক্ত দিয়ে আপনার প্রাণ বাঁচিয়েছেন। সে মাসিকের রক্ত কি আপনাকে মুখ দিয়ে পান করিয়েছেন না কি নাড়ী দিয়ে। মহান আল্লাহ মাসিকের রক্ত নাড়ী দিয়ে আপনার দেহ প্রবেশ করিয়ে আপনার প্রাণ রক্ষা করেছেন। কেনো করেছেন? উত্তর হচ্ছে এই রক্ত যদি আপনার মুখ দিয়ে আপনার দেহে প্রবেশ করাতেন তাহলে আপনার মুখ টা নাপাক হয়ে যেত। তা হলে আপনি দুনিয়াতে এসে অপবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম নিতেন। আপনি যাতে পবিত্র মুখ দিয়ে মহান আল্লাহর নাম জপতে পারেন সে জন্য মহান আল্লাহ এই ব্যবস্থার মাধ্যমে মায়ের গর্ভে আপনার প্রাণ বাঁচিয়েছেন।

তৃতীয়তঃ
যৌনাঙ্গতে মুখ লাগালে যৌনাঙ্গতে লেগে থাকা জীবাণু আপনার দেহে প্রবেশ করবে। তাতে আপনি অসুস্থ হওয়ার সম্ভবনা আছে। তাছাড়া আপনি যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাবেন সে যদি যৌন রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকে তখন আপনি কি করবেন?
এখন আপনি যদি প্রশ্ন করেন ডাক্তারেরা তো বলে যৌনাঙ্গতে মুখ লাগাতে। উত্তরে আমি বলতে চাই, ডাক্তারেরাতো বলে পানি ফুটালে পানিতে থাকা জীবাণুরা মরে যায়। কিন্তু পানিতে থাকা জীবাণুরা মরে কি উড়ে যায় নাকি সে জীবাণু পানিতেই থেকে যায়? এখন আপনি যদি সে পানি খান তাহলে মরা জীবাণুর সাথেই সে পানি খাচ্ছেন।

অন্যরা যা খুঁজছেঃ মেয়েদের গোপন অঙ্গ; গোপন অঙ্গ; মুখের দুর্গন্ধ দূর করার প্রাকৃতিক প্রতিকার; কুঁচকির কালো দাগ দূর করার উপাই; মুখের দুরগন্ধ দুর করার উপায়; মুখে গনধ; মুখের দূরগন্ধ দূর করার; মুখের দূর্গন্ধ দুর করার উপায়; মুখের দূর্গন্ধ দূর করার উপায়; ভোদার দূর্গন্ধ কী করতে পারি; মেয়েদের মুখে বাজে গন্ধ; স্তন বড় করার কৌশল; মেয়েদের বোগলের দুরগন্ধ থেকে সমাধানের উপায়; সরিলের দুর গন্ধ দুর করার টিপশ; লিঙ্গের দূর গন্ধ দূর করার উপায় ছেলেদের জন্য; লিঙ্গের গন্ধ দূর করব; লিঙ্গের আশেপাশের দূর্গন্ধ কিভাবে দূর করা যায়; লিংগের গন্ধ; যৌনাঙ্গের দুর্গন্ধ দূর করার উপায়; মেয়েদের লজ্জাস্থানের গন্ধ দূর করার উপায়; মেয়েদের মুখের গন্দ দুর করার উপায়; ভোদার দাগ; ফ্রিজের দুর্গন্ধ দুর করার উপায়; প্রাকৃতিক উপায়ে মেয়েদের যোনির বীর্যের টক দূর করার নিয়ম; গায়ের দূরগন্ধ দূর করার পারফিউম; খুশকি দুর করার উপায়; কুচকির দুর্গন্ধ দুর করার উপায়; কুচকিতে চম রোগ এর দাগ দুর করার উপায়; কুচকিতে কাল দাগ ও গন্ধ দূর করার উপায়; proseste canser দুর করে; breat এর দাগ দুর করার উপায়; গোপন অঙ্গের চুলকানি প্রতির গায়ের দূর্গন্ধ; গোপন অঙ্গের গন্ধ দূর করার উপায়; পুরুষাঙ্গের দূর্গন্ধ তসলিমা; পুরুষাঙ্গের দূর্গন্ধ; পুরুষাঙ্গের দূরগন্ধ; জরায়ুর গনধ দুর করার উপায়; ছেলেদের বগলের দুর্গন্ধ করার উপায়; ছেলেদের গোপন জায়গা সাদা করার উপায় কী; ছাড়পোকা দূর করার উপায়; গোপন অঙ্গের দূরগন্ধ দূর করার উপায়; গায়ের গন্ধ দুর করার উপায়;

যে জিনিসের গন্ধ শোঁকা মাত্রই নারীদের যৌন উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ বেড়ে যায়

পস্পরের জন্য সুখদায়ক বা স্যাটিস্ফায়িং একটী যৌন মিলনের প্রথম শর্ত হচ্ছে আপনার পার্টনারের প্রতি শ্রাওদ্ধাশীল হওয়া। আপনি যে আন্নদ পাচ্ছেন সেও ততটুকূ আনন্দ পাচ্ছেন কী না তা যখন আপনি নিশ্চিত করতে উতসাহিত হবেন, তখনই যৌনমিলন আপ্সে আপ স্যাটিস্ফায়িং হবে।

যৌন
যে জিনিসের গন্ধ শোঁকা মাত্রই নারীদের যৌন উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ বেড়ে যায়

নারী কিছুটা উৎপীড়িত হ’তে চায় যৌন মিলনে-তাই মনোবিজ্ঞান স্বীকার করে যে, পুরুষ কিছুটা উৎপীড়ন করতে পারে নারীকে। কিন্তু প্রহরণ ঠিক শৃঙ্গার নয়-কারণ মিলনের আগে এর প্রয়োজন নেই। পূর্ণ মিলনের সময় আনন্দ বৃদ্ধির জন্যে পুরুষ ধীরে ধীরে নারী-দেহের কোমল অংশে মৃদু প্রহার করতে পারে।

আজকের কথা নয়। সেই আদিম যুগ থেকেই ভেষজ উদ্ভিদ মানুষের যৌন উত্তেজনায় একটি বিশেষ ভূমিকা গ্রহণ করেছে। প্রাচীন মানুষরা বিভিন্ন ভেষজ পদার্থের মাধ্যমেই নারীদের যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি করতেন।

আজ দিন বদলেছে, সময় পালটেছে। বাজারে এসেছে বিভিন্ন যৌনবর্ধক ওযুধ। কিন্তু সম্প্রতি এমন একটি ছত্রাকের সন্ধান পাওয়া গেছে, যার গন্ধ শোঁকা মাত্রই নারীদের যৌন উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ বেড়ে যায়।যদিও এই ছত্রাকের নাম এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি, তবে এটুকু নিশ্চিত হওয়া গেছে যে এটি ডিক্ট্যোফারা প্রজাতি বংশোদ্ভূত

জল হ্যালিডে এবং নোয়া সোল নামে দুই বিজ্ঞানী এই বিশেষ ছত্রাকটি আবিষ্কার করেন।তাঁরা জানিয়েছেন, এই বিশেষ ছত্রাকের গন্ধ কোনও মহিলার নাকে যাওয়া মাত্রই তিনি প্রচণ্ডভাবে উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এই মর্মে তারা একটি পরীক্ষাও চালিয়েছিলেন। সেখানেই দেখা গেছে, ১৬ জনের মধ্যে ছ’জন মহিলাই এই চটদলদি যৌন উত্তেজনার শিকার হয়েছেন। বাকি ১০ জনের উত্তেজনা তৎক্ষনাৎ না বাড়লেও হৃদস্পন্দন অনেকটাই বেড়ে গেছিল। তবে এই একই পরীক্ষা পুরুষদের উপর চালানো হলেও, কোনও প্রভাব বিস্তার করতে পারেনি

যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধির উপায়

স্তন মর্দন করে নারীদের উত্তেজনা বৃদ্ধি

ন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মেডিসিনাল মাশরুম পত্রিকাতেও একথা দাবি করা হয়েছে যে এই বিশেষ ছত্রাকে একধরনের গন্ধ থাকে যা থেকেই মহিলাদের চটদলদি যৌন উত্তেজনা বৃদ্ধি পায়। হ্যালিডে জানিয়েছেন, এই ছত্রাকে একটি বিশেষ হরমোনের যৌগ রয়েছে যা সরাসরি মহিলাদের স্নায়ুতে গিয়ে আঘাত করে। আর এই আঘাতের ফলে যৌন উত্তেজনার সময় মহিলাদের যে স্নায়বিক অনুভুতি হয়, সেই একই অনুভূতি এই ছত্রাকের গন্ধেও হয়।

মাত্র ২ মিনিটেই স্ত্রীকে চরম সুখ দেওয়ার উপায়

আরো অনেকে খুজেছেঃ

জৌন মিলন; য়ৌন; যৌন মিলন com; যৌন উত্তেজনা কিভাবে কমাবো; মহিলা যৌন উত্তেজনা ডট কম; বাংলাদেশি যৌনতা; বাংলা যৌন জিবন; দৈহিক মিলন; ক্লাইটোরিস; ক্লাইটোরিস এর ছবি; ক্লাইটোরিস; |যৌনমিলন; women thyroid কী?; যৌনমিলন?; মিলনের নিয়ম; নগ্ন বাংলা মেয়ের যৌন; সাধারন মেদের ছবি;মাল বের করার নিয়ম; সেক্স করার নিয়ম; সেক্সে সমস্যা; ধন চোষার নিয়ম; পেগনেনট; কিভাবে সেকশ টাইম বাড়ানো যাü দীর্ঘ সেক্স; www বাংলা চোদা লঙগ টাইম ঔষধ com; উতেজনা সময ধন খাড়া হয় না তার প্রতিকার; চুদার কৌশল; বীর্য ধরে রাখার উপায়; মাল; যৌন সেক্স; সেক্স করার নিয়ম; কিভাবে বেশি সময় সেক্স করা  কিভাবে সেক্স করলে বেশি মজা  কোন ট্যাবলেট খেলে অনেক্ষন ø চোদার উপায়; চোদার সময়; বির্য বের হওয়া সেকছ ভিডিও; বেিশ সময় চুদা; মহিলারা কেন আওয়াজ করে সেকú মেয়েদের সেকস বাড়ানোর গলপ যৌবন এর জালা মেটানো কম; সেক্স করা কি ভালো; সেক্স টাইম বাড়ানোর উপায়; apner doctor মেয়েরা শশা বেগুন দিয়ে কিভাবে সেক্স করে কি ভাবে; vegorex 20 ওষুধের কাজ কি; www সংগম টাইম সময় করবার ঔষধ com; অধিক সময় সেক্স করার উপায়; অনেক খুন চোদার নিয়ম কি?; অনেকখন বষী ধরে রাখার নিয়ম; আনেক রকম ভাবে সহবাস করা যায়; আমার তারাতারি পরে যায কি করবো; এক ঘনটা চোদাচোদি ভিডিও; ওষধ (বেশি সময় চুদতে চাই); কি করলে দির্ঘ্য সময় চুদতে পারব; কি করলে সেকস বারে; কি খবার খেলে বেশি খুন সেকস করা যায়; কি খাইলে চুদন যাই বেশী; কি খেলে মিলনে সময় বেশি পাওয়া যায়; কি ভাবে চুদবে টিপচ; কি ভাবে চুদলে বেশি সময় থাকা যায়; কি ভাবে সহবাস বেসিখন করা য়া; কি ভাবে সেক্স করলে বাচ্চা হয; কিভাবে চুদতে হয়; কিভাবে চুদলে মেয়েরা বেশি খুশি হয়; কিভাবে চুদলে মেয়েরা খুশি হয়; কিভাবে ছেলেকে খুশি করা যায়; কিভাবে প্রথম বউ এর সাথে মিলন করতে হয়; কিভাবে যৌন সময় বৃদ্ধি করব; কোথায় কিশ করলে ছেলেরা খুশি; কোথায় মেয়েদের চুদতে পাওয়া যার?; কোন উপায়ে সেস্ক করলে স্ত্রী বেশি আরাম পায়; কোন ট্যাবলেট খেলে সেক্স করার সময় ১ ঘন্টা সেক্স করা; কৌশল; চুদ খাওয়ার উপায়; চুদা চুদি করার নিয়ম; চুদা বেসি খন হতে পারে কি করে; চুদাচুদি রোধ com; চুদার নিয়ম কানুন; চোদা চুদি করার নিয়ম; চোদাচুদির কৌশল; চোদার টিপস; চোদার নিয়ন; চোদার সময় বারানোর উপায়; ছেলেদের মাল; ছেলেদের মাল আউট; টোটকা উপাই; দীঘ সময় চুদার উপায়; দীর্ঘ সময় COM; দীর্ঘ সময় মিলনের চিকিৎসা; দীর্ঘসময় সেক্স করার সহজ উপায়; দেরিতে বীর্যপাত হবার ওষুধ আছে; দেহিক মিলনের সময় বৃদ্দির উপায়; দৈহিক মিলন স্থায়ী করার নিয়ম; দ্রুত বীর্য পাত রোধ করার উপায়; বির্যপাত বেশি সময় ধরে রাখার নিয়ম; বীর্য ঘন থাকলে কি বেশি সেক্স করা যা; বীর্য বেশিখন ধরে রাখার উপায়; বের করার পর আবার যৌন মিলন; বেশি খন চোদার জন্য কি করতে হবে; বেশি চোদাচুদি কি ভাবে করা যায়; বেশি সময় চুদবার উপায়; বেশিক্ষণ ধরে যৌনমিলন এর ঔষধ কি; বেশিক্ষণ সেক্স করার উপায়; বেশিখন ছেকস করা যায কিভাবে; বেশী সময় ধরে সেক্স করার উপায়; বেিশ সময় নিয়ে চুদার কৌশল; ভেষজ কি খাইলে অনেক সময় ধরে সেকস করা যায়; মাল দেরিতে পড়ার উপায় কি; মাল বের করার উপাই; মাল বেসি খন ধরে রাখার উপায়; মিলোনের উপকার; মেয়েদের কাচে বেশী কি ভাবে থাকা কায়; মেয়েদের কোথায় হাত দিলে জালা বারে; মেয়েদের বীযপাত; মেয়েদের মাল বের করার নিয়ম; মেয়েরা ছেলেদের ধোনের মাল কেনো খায়; মেয়েদেকে কিভে করা যায় কম; মেয়েদের চোদার কৌশল; মেয়েদের বিয পাতের কারন; মেয়েদের সেক্স উওেজনা বাড়ানোর কৌশল; মেয়েদের সেক্স কি ভাবে হয়; মেয়েদের সেক্স বেশিক্ষণ ধরে রাখার উপায়; ময়েদের বিরজ; যৌন উত্তেজনা ওষধ কিকি; যৌন ক্ষমতা বাড়ানোর উপায়; যৌন মিলনের সময় দীর্ঘক্ষন লিঙ্গ শক্ত রাখার উপায় কি; যৌন মিলনের সময় দৈঘ্য করার উপায়; যৌন শকতি দিরঘ করার উপায়; যৌন শক্তি বাড়ানোর ব্যায়াম; যৌন সঙ্গম দীর্ঘস্হায়ী করতে হলে কি করতে হবে; যৌবন জালা মেটানো; রমজান মাসে বড়াতে যে পাতা দেওয়া হয়; রাশি জানা উপয় কি; সংগম করার নিয়ম; সহবাশ চুদা; সহবাস এর সহজ উপায়; সাংসারিক চুদা; সেকস করার নিয়ম; সেকস টাইম কি করে বাড়ানো যাই; সেকস বাড়ানোর উপায়; সেকস বিসয়ে টিপস; সেক্ করার নিয়ম; সেক্স করার; সেক্স টাইম; সেক্স টেবলেট এর নাম; সেক্স নিয়ম; সেক্স বাড়ানোর নোর নিয়ম; সেক্স বেশি সময় ধরে করার উপায়; সেক্সটাইম বাড়ানোর উপায়; সেক্সে টাইম বাড়ানোর ঔষুদ খেলে কি পুরুষের কোন ক্ষতি হয়?; হাত দিয়ে মাল বের করলে কি হয়;